চাঁপাইনবাবগঞ্জ ব্যুরো: চাঁপাইনবাবগঞ্জ চৰু হাসপাতালে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারিদের ঈদের বেতন বোনাস দেয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এই নিয়ে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারিরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হাসপাতালটি পরিচালনা কমিটি সভাপতির অনুপসি’তিতে গত ২৯ জুন একটি অংশ প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী এ কে এম খাদেমুল ইসলামকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এরপর থেকে কমিটির সদস্যদের নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে। বিষয়টি সমাধান না হওয়া পর্যন্ত ব্যাংক হিসাব স’গিত রাখার কথা জানিয়ে ব্যাংকে চিঠি দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ চৰু হাসপাতালের বর্তমান চেয়ারম্যান ও প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট চৰু বিশেষজ্ঞ ডা. আয়াজ উদ্দীন।
হাসপাতালে কর্মরত রুমা ইসলাম, লেতুন জেরা, জান্নাতুল ফেরদৌসসহ বেশ কয়েকজন বলেন, এখানে কি সমস্যা তা জানতে চাই না। কাজ করেও যদি বেতন না পাই, তাও ঈদের সময় তখন কেমন লাগে।
এ বিষয়ে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম বলেন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী এ কে এম খাদেমুল ইসলামকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে তিনি চেয়ারম্যানকে ভুল বুঝিয়েছেন। এর ফলে চেয়ারম্যান ব্যাংক কর্তৃপৰকে চিঠি দিয়ে অ্যাকাউন্ট স’গিত করে দিয়েছেন। তিনি এই অচলাবস’ার জন্য প্রকৌশলী এ কে এম খাদেমুল ইসলামকে দায়ি করেছেন।
এ ব্যাপারে প্রকৌশলী এ কে এম খাদেমুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তারা আমাকে অব্যাহতি দিয়েছে, সেটা অগণতান্ত্রিক। সেই সভায় চেয়ারম্যানসহ অনেকেই অংশ নেননি। এ বিষয়ে হাসপাতালের বর্তমান চেয়ারম্যান ডা. আয়াজ উদ্দীনকে ফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক বলেন, চৰু হাসপাতালটি জেলাবাসীর চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। অভ্যন্তরীণ যে দ্বন্দ্ব রয়েছে, তা সমাধানে চেষ্টা করা হবে। এ হাসপাতালটি আরও ভালভাবে তার সেবা কার্যক্রম চালাতে পারে সেজন্য পদৰেপ নেয়া হবে।