এফএনএস: বরগুনায় হত্যার দায়ে একজনের ফাঁসির রায় এবং দুইজনের যাবজ্জীবন দিয়েছে আদালত। বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আছাদুজ্জামান গতকাল বুধবার ছয় বছর আগের এ মামলার রায় ঘোষণা করেন। এছাড়া ফাঁসির আসামিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত। ফাঁসির আসামি বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামের আবদুস সত্তার গাজীর ছেলে সালাউদ্দিন গাজী পলাতক রয়েছেন। যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন বরগুনা পৌরসভার থানাপাড়া সড়কের জামাল সওদাগরের ছেলে র্ববেল সওদাগর ও বড় গৌরীচন্না গ্রামের আবদুল আজিজের ছেলে নাজমুল রায় ঘোষণার সময় আদালতে ছিলেন।
অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বেতাগীর কাজিরাবাদ ইউনিয়নের চান্দখালী কলেজ গেটের শামীম আহসানের ছেলে হৃদয় আহসান, বরগুনা পৌরসভার শহীদ স্মৃতি সড়কের জানুকী রায়ের ছেলে বাদল কৃষ্ণ রায় ও থানাপাড়া সড়কের দুলাল খানের ছেলে সোহেল খানকে বেকসুর খালাশ দিয়েছে আদালত। ওই আদালতের পেশকার সেলিম রেজা মামলার নথির বরাতে জানান, ২০১৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার পরে বরগুনা পৌরসভার শহীদ স্মৃতি সড়কের সুবল চন্দ্র রায়ের ছেলে অনিককে (১৭) কোমল পানীয়র সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়। ১৮ দিন পর জেলা সাব-রেজিস্ট্রার দপ্তরের পুরাতন ভবনের পাশে সেফটিক ট্যাংক থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
হত্যার পরদিন তার বাবা সুবলচন্দ্র রায়ের কাছে মোবাইল ফোনে তিন লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। এ ঘটনায় তিনি বরগুনা থানায় মামলা করেন। ওই আদালতের পিপি মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, ৩২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত তিনজনকে দোষী সাব্যস্ত করে শাস্তি দিয়েছে। মামলায় আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল বারী আসলামসহ কয়েকজন।