সোনালী ডেস্ক: বগুড়া ও জয়পুরহাটে বৃদ্ধাসহ ৩ জন খুন হয়েছেন।
বগুড়া প্রতিনিধি জানান, বগুড়ায় মাদককে না বলায় প্রকাশ্য দিনের বেলায় এলাকার মাদকব্যবসায়ীর ছুরিকাঘাতে খুন হলেন নূরুল ইসলাম ভোলা (৩৫) নামের এক যুবক । ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে শহরের সুলতানগঞ্জ এলাকার ঈদগাহ মাঠ এলাকায়। নিহত নূরুল ইসলাম ভোলা শহরের সুলতানগঞ্জপাড়া ঈদগাহ লেনের মৃত গফুর সেখের পুত্র ।
পুলিশ জানায়, এলাকার মাহবুব শেখের পুত্র মাদকব্যবসায়ী নাঈমের কথা না মানায় সে ভোলার উপর ড়্গিপ্ত হয়। মঙ্গলবার এলাকায় নাঈমের সাথে ভোলার কথা কাটাকাটি হয় । এরই জের ধরে বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে বাড়ির সামনে আবারো তাদের মধ্য বাকবিত-া হয়। এর এক পর্যায়ে নাঈম ভোলার শরীরে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এ সময় আর্তচিৎকার করে মাটিতে লুটিয়ে পরে ভোলা। পরে স্থানীয়রা মুমূর্ষু অবস্থায় ভোলাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ বিষয়ে বগুড়া সদর থানার ইন্সপেক্টর রেজার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, ভোলার খুনিকে আটকের চেষ্টা চলছে।
জয়পুরহাট প্রতিনিধি জানান, জয়পুরহাট সদর উপজেলার ভাদশার হরিপুর ব্রিজ এলাকা থেকে আবদুর রহিম নামে এক ভ্যানচালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার বেলা ১১টায় মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত রহিম নওগারঁ ধামইরহাট উপজেলার মুকিন্দিপুর গ্রামের বাসিন্দা। পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে জয়পুরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিদ্দিকুর রহমান জানান, বিকেলে আবদুর রহিম ভ্যান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি। পরিবারের সদস্যরা তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করলেও কোথাও তার সন্ধান পাননি। এক পর্যায়ে বুধবার সকালে জয়পুরহাটের হরিপুর এলাকায় তার গলা কাটা লাশের সন্ধান পান। তার ভ্যানটি অন্য একটি জায়গা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করা হবে বলে ওসি জানান ।
এদিকে জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার মাত্রাইয়ে জমি দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপড়্গের কোদালের আঘাতে খোতেজা বিবি (৬০) নামের ১ নারী খুন হয়েছেন। এ সময় তার দুই ছেলে খলিলুর রহমান (৪০) ও লুৎফর রহমান (৩৫) আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় প্রতিপড়্গের দু জনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত খোতেজা বিবি কালাই উপজেলার মাত্রাই সোনারপাড়া গ্রামের মোজাহার আলীর স্ত্রী।
নিহতের পরিবার ও থানা সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার মাত্রাই সোনারপাড়া গ্রামে মোজাহার আলী ও নুরনবী, রেজাউল, মোফাজ্জাল গং এর মধ্যে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। বর্তমানে জমিগুলো মোজাহার আলীর দখলে রয়েছে। বুধবার দুপুরে মোজাহার আলী তার দুই ছেলেকে নিয়ে ওই জমিগুলোতে আমন ধান রোপণের জন্য আইল কাটতে গেলে প্রতিপড়্গের লোকজন তাদের ওপর চড়াও হয়। ঘটনা শুনে মোজাহারের স্ত্রী খোতেজা বিবিসহ বেশ কয়েকজন নারী সেখানে উপস্থিত হয়। এক পর্যায়ে উভয় পড়্গের মধ্যে সংঘর্ষ বাধলে প্রতিপড়্গের লোকজন খোতেজা বিবির ছেলে খলিলুর রহমান ও লুৎফর রহমানকে বেদম মারধর করতে থাকে। এ সময় তিনি দুই ছেলেকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তারা কোদাল দিয়ে আঘাত করলে ৩ জনই আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙে নিয়ে যায়। সেখানে খোতেজা বিবির অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা তাকে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে রেফার্ড করলে পথেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় কালাই থানা পুলিশ প্রতিপড়্গের মৃত লোকমানের স্ত্রী নূরবানু ও রেজাউলের স্ত্রী ফাতেমা খাতুনকে আটক করেছে।
কালাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ খান বলেন, ওই ঘটনায় মামলার প্রসত্মুতি চলছে। ইতোমধ্যে দু জনকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।