এফএনএস আর্ন্তজাতিক: উত্তর কোরিয়া বিগত আটদিনের মধ্যে তারা গতকাল শুক্রবার তাদের তৃতীয় ৰেপণাস্ত্রের পরীৰা চালিয়েছে। দৰিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী একথা জানায়।
এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, পিয়ংইয়ংয়ের ৰেপণাস্ত্র পরীৰা চালানো নিয়ে তার কোন ‘সমস্যা নেই।’
জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুযায়ী পারমাণবিক ৰমতাধর দেশ উত্তর কোরিয়ার ব্যালাস্টিক ৰেপণনাস্ত্রের পরীৰা চালানো নিষিদ্ধ। পিয়ংইয়ংয়ের এমন কর্মকা-ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের ইউরোপীয় সদস্য দেশগুলোর পৰ থেকে জোরালো নিন্দা জানানো হলেও এ ব্যাপারে ট্রাম্পের পৰ থেকে তুলনামূলকভাবে কম প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করা হয়। ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সাথে তিনবার বৈঠক করেন। আর তার এসব আলোচন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংবাদমাধ্যম গুর্বত্বসহকারে তুলে ধরে।
ওহাইও’তে সমাবেশের জন্য হোয়াইট হাউজ ত্যাগ করার সময় ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, উত্তর কোরিয়ার ৰেপণাস্ত্র পরীৰায় ‘আমার কোন সমস্যা নেই। কি ঘটছে আমরা তা দেখবো। তবে স্বল্প-পালৱার ৰেপণাস্ত্র অনেক ভাল।’
কোরীয় উপদ্বীপকে বিভক্ত করা ডিমিলিটারাইজড জোনে আকস্মিক এক বৈঠকে কিম ও ট্রাম্প নিরস্ত্রীকরণ আলোচনা ফের শুর্ব করার ব্যাপারে সম্মত হন। তবে এ ৰেত্রে কার্যকরী-পর্যায়ের সংলাপ এখনো শুর্ব হয়নি।
এদিকে আগামী সপ্তাহে শুর্ব হতে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্র ও দৰিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া প্রশ্নে পিয়ংইয়ং প্রচন্ড ৰুব্ধ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উত্তর কোরিয়ার এসব ৰেপণাস্ত্র পরীৰার উদ্দেশ্য ওয়াশিংটনের ওপর চাপ বৃদ্ধি করা।
তারা আরও বলছেন, এমন পরিসি’তিতে এ বছরের শেষ নাগাদ পর্যন্ত আলোচনা বিলম্ব হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
দৰিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চীফস অব স্টাফের এক বিবৃতিতে বলা হয়, উত্তর কোরিয়া শুক্রবার ভোরে তাদের পূর্ব উপকূল থেকে স্বল্প-পালৱার দু’টি ৰেপণাস্ত্র উৎৰেপণ করে। ৰেপণাস্ত্র দু’টি সাগরে গিয়ে পড়ে।
সিউলের ভাষ্য অনুযায়ী, উত্তর কোরিয়া স্বল্প-পালৱার দু’টি ব্যালাস্টিক ৰেপণাস্ত্রের পরীৰা চালানোর মাত্র দু’দিন পর এ ৰেপণাস্ত্র উৎৰেপণ করলো।