স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর সাংবাদিক ফেরদৌস সিদ্দিকী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রানত্ম হয়েছেন। বুধবার সন্ধ্যায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফেরদৌস অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগো নিউজের রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক।
গত বৃহস্পতিবার রামেক হাসপাতালে মোট ৪৩ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি ছিলেন। এদের মধ্যে দুইজন রাজশাহীতে আক্রানত্ম হয়েছেন। বাকিরা ঢাকায় আক্রানত্ম হয়ে এসেছেন। সাংবাদিক ফেরদৌস দ্বিতীয় ব্যক্তি যিনি রাজশাহীতেই ডেঙ্গু রোগে আক্রানত্ম হয়েছেন।
ফেরদৌস জানান, কয়েকদিন থেকেই জ্বর হচ্ছে। এছাড়া শরীর ব্যথা, দুর্বল ও শ্বাস কষ্ট হচ্ছিল। তাই গত বুধবার বিকেলে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যাই। চিকিৎসক ডেঙ্গু শনাক্তে রক্তের আরবিএস, সিবিএস ও এনএসওয়ান পরীক্ষা দেন। পরীক্ষার পর প্রতিবেদন হাতে পেয়ে জানতে পারি আমি ডেঙ্গুতে আক্রানত্ম। এ কারণে সন্ধ্যায় হাসপাতালে ভর্তি হই।
রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিক ফেরদৌস সিদ্দিকী ডেঙ্গুতে আক্রানত্ম হয়েছেন। তাকে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তবে কিভাবে তিনি ডেঙ্গুতে আক্রানত্ম হয়েছেন তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তিনি একদিন সংবাদ সংগ্রহের জন্য হাসপাতালে ডেঙ্গু কর্নারে এসেছিলেন বলে জানিয়েছেন।
রামেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. খলিলুর রহমান বলেন, সব এডিস মশা ডেঙ্গু রোগের জীবাণু বহন করে না। কেবল আক্রানত্ম ব্যক্তিকে কামড় দিলেই ডেঙ্গুর জীবাণু পায়। এরপর কাউকে কামড় দিলে তিনিও আক্রানত্ম হন। তাই খবর সংগ্রহে হাসপাতালে আসার পর এ ধরনের কোনো মশা কামড় দেয়ার কারণে সাংবাদিক ফেরদৌস সিদ্দিকী আক্রানত্ম হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এদিকে, সাংবাদিক ফেরদৌস সিদ্দিকীর আশু রোগমুক্তি কামনায় রাজশাহীর তানোরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ মাগরিব তানোর পৌর সদরের সৈনিক সুপার মার্কেটে তানোর রিপোর্টার্স ক্লাবে (টিআরসি) এ দোয়ার আয়োজন করা হয়। দোয়ায় অংশ নেন- ক্লাবের সভাপতি কবি অসিম কুমার সরকার, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু বাক্কার প্রমুখ।