জয়পুরহাট প্রতিনিধি: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের জাফরপুর হিন্দুপাড়া গ্রামের নিখিলের বাড়িতে নবনির্মিত সেফটিট্যাঙক পরিষ্কার করতে ও সার্টারিং খুলতে নেমে ৪ শ্রমিকসহ ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।
এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৩ জন। আহতদেরকে নওগাঁ হাসপাতাল ও আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নঙে ভর্তি করা হয়েছে। এদের অবস্থাও আশঙকাজনক বলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন। নিহতরা হলেন, আক্কেলপুর উপজেলার গণিপুর গ্রামের রাজমিস্ত্রি শাহিন (৪২), মুকুল হোসেন (৪০), সজল হোসেন (১৭), সিহাব হোসেন (১৫), বাড়ির মালিক জাফরপুর হিন্দুপাড়ার নিখিলের ভাই ভুট্টু চন্দ্র (৪০) ও তার ছেলে প্রীতম চন্দ্র (১৬)।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে, বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জাফরপুর হিন্দুপাড়া গ্রামের নিখিলের বাড়ির নবনির্মিত সেফটিট্যাঙেকর সার্টারিং খুলতে ও পরিষ্কার করতে ট্যাঙিকতে নামেন নির্মাণশ্রমিক শাহিন। বেশ কিছু সময় পরেও শাহিন ট্যাঙিকর ভেতর থেকে উঠে না আসায় আরও ৮/৯ জন তাকে উদ্ধার করতে ওই সেফটিট্যাঙেক নামেন। বিষাক্ত গ্যাসে আক্রানত্ম হয়ে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা স্থানীয়দের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃতদের মধ্যে সেফটিট্যাঙেকর ভেতরেই ৩ জনের মৃত্যু হয়। অন্যদের নওগাঁ হাসপাতাল ও আক্কেলপুর স্বাস্থ্যকমপেস্নঙে নেয়া হলে আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়।
আক্কেলপুর থানার ওসি কিরণ বলেন, নিখিল চন্দ্র বাড়িতে নতুন একটি পাকা টয়লেট নির্মাণ করছেন। কয়েক দিন আগে মিস্ত্রিরা ওই টয়লেটের সেফটিট্যাঙকের ছাদ ঢালাই করেন। বুধবার মিস্ত্রি ও শ্রমিকরা সাটারিং খুলতে গিয়ে ট্যাঙিকতে জমে থাকা বিষাক্ত গ্যাসে আক্রানত্ম হয়ে মারা যান বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।