স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে পাট কাটা শুরু হয়েছে প্রায় দুই সপ্তাহ আগেই। পানিতে জাগ দেয়ার পর পাটের সোনালী আঁশ ছড়ানোর কাজও শুরু হয়েছে। রোদে শুকানোর পর কোনো কোনো কৃষক বিক্রিও করছেন আড়তে নিয়ে। পাট মৌসুমের শুরুতেই তারা ভাল দামও পাচ্ছেন। ফলে এ বছর সোনালী আঁশে রাজশাহীর কৃষকের মুখে হাসি ফুটছে।
রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, গেল বছর রাজশাহীতে পাটের আবাদ হয়েছিল ১৩ হাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে। এবার এই পরিমাণ জমিতেই পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। তবে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে এবার পাটের আবাদ হয়েছে ১৩ হাজার ৮৪৬ হেক্টর জমিতে। দুই সপ্তাহ ধরে পাট কাটা শুরু হয়েছে। জাগ দেয়ার পর পাটের আঁশ আলাদা করে বিক্রিও শুরু হয়েছে কোথাও কোথাও।
পবা উপজেলার নতুন ফুদকিপাড়া গ্রামের পাটচাষি আবু আসলাম জানান, এবার চার বিঘা জমিতে তিনি পাট চাষ করেছেন। গত সপ্তাহে দুই বিঘা জমির পাট কেটে জাগ দিয়েছেন। এবার বৃষ্টি হওয়ায় খালে-বিলে পানির অভাব নেই। পাটের আবাদও ভাল হয়েছে। খালে পানি থাকায় আঁশের মান ভাল হবে বলেই তিনি আশা করছেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তিনি পাট বিক্রি শুরু করতে পারবেন।
দুর্গাপুর উপজেলার পুরানতাহিরপুর গ্রামের পাটচাষি কালাম শেখ জানান, গত রোববার তিনি এক বিঘা জমির পাট বিক্রি করেছেন। এক বিঘায় ফলন পেয়েছেন নয় মণ। প্রতি মণ বিক্রি করেছেন এক হাজার ৬০০ টাকা দরে। এক বিঘা জমিতে পাট চাষে খরচ হয়েছিল সাড়ে সাত হাজার টাকা। এক বিঘা জমিতে পাট চাষ করে শুধু সোনালী আঁশ বিক্রি করেই তার প্রায় সাত হাজার টাকা লাভ হয়েছে। বাড়তি পেয়েছেন পাটের খড়ি । সেগুলো বাড়িতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করবেন।
গোদাগাড়ী উপজেলার ফুলতলা গ্রামের পাটের আড়তদার আবুল হোসেন জানান, তিনি বর্তমানে পুরাতন পাট কিনছেন দুই হাজার টাকা মণ দরে। নতুনের দাম দেড় হাজার থেকে এক হাজার ৬০০ টাকা পর্যন্ত। তবে এখন নতুন পাট কম আসছে। আগামী দুই সপ্তাহ পর প্রচুর পরিমাণে এ বছরের নতুন পাট আড়তে আসতে শুরু করবে। তবে দাম খুব একটা কমবে না বলেই জানান তিনি।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামছুল হক বলেন, পাট চাষে তেমন একটা খরচ নেই। বীজ কেনা এবং মাঝে দুটি নিড়ানি দেয়ার প্রয়োজন হয়। সব মিলিয়ে বিঘাপ্রতি খরচ হয় সর্বোচ্চ আট হাজার টাকা। আর পাটের গড় উৎপাদন সাড়ে আট মণ। দাম ভাল থাকলে চাষিরা লাভবান হবেন। তিনি বলেন, সরকার কিছু কিছু ক্ষেত্রে পাটের বস্তা ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে দিয়েছে। এখন পাটের আঁশের বহুমুখি ব্যবহার হচ্ছে। তাই দাম ভাল থাকছে। চাষিরা লাভবান হচ্ছেন।