স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) মেয়র এর আগে তামাকমুক্ত নগরী গড়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিলেন। তিনি স্বাস’্যসম্মত সুন্দর নগরী গড়তে বদ্ধ পরিকর। অনেক আগেই আমার ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অফিস তামাকমুক্ত ঘোষণা করেছি এবং আমার কার্যালয়ের বিলবোর্ডে তামাকমুক্ত ওয়ার্ড বাক্যটি সংযোজন করেছি। আজ এই ওয়ার্ডকে পূনরায় তামাকমুক্ত ঘোষণা করলাম। এর মধ্যদিয়ে আমরা মেয়র তামাকমুক্ত নগরী গড়ে তোলার যে স্বপ্ন তা কিছুটা হলেও বাস্তবায়ন হবে। আমরা মেয়রের তামাকমুক্ত আধুনিক নগরী গড়ার ‘স্বপ্ন’ বাস্তবায়নেই কাজ করে যাচ্ছি।
নগরীর ১৯ নং ওয়ার্ড ‘তামাকমুক্ত ঘোষণা’ শীর্ষক ক্যাম্পেইন কর্মসূচির আলোচনা সভায় কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন গতকাল রোববার এসব কথা বলেন।
মানবাধিকার ও উন্নয়ন সংস’া ‘এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্টড়-এসিডি’ ও এন্টি ট্যোবাকো মিডিয়া এলায়েন্স-আত্মা’র উদ্যোগে এবং ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের আয়োজনে ওয়ার্ডে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন এবং এসিডি’র এডভোকেসি অফিসার শরিফুল ইসলাম শামীমের নেতৃত্বে ওয়ার্ড কার্যালয়ের সামনে থেকে ক্যাম্পেইনটি শুর্ব হয়।
ক্যাম্পেইন শুর্বর আগে ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ের সামনে এসিডি’র প্রোগ্রাম অফিসার কৃষ্ণা রাণী বিশ্বাসের উপস’াপনায় অনুষ্ঠিত হয় সংৰিপ্ত আলোচনা সভা।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে অনুষ্ঠানে ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরও বলেন,
আমরা আজ নগরীর এই ওয়ার্ডকে তামাকমুক্ত ঘোষণা করলাম। কিন’ ঘোষণা করে বসে থাকলেই হবে না। জনসচেতনতার জন্য আমাদেরকে বড় আকারে আরও বেশি বেশি আলোচনা সভা ও ক্যাম্পেইন করতে হবে। যেখানে তামাকের ৰতিকর দিকগুলো সম্পর্কে ডাক্তাররা এর ভয়াবহতা তুলে ধরবেন, এডভোকেটরা তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করবেন।
আলোচনা অনুষ্ঠানের পরে ক্যাম্পেইন প্রোগ্রামটি ১৯ নং ওয়ার্ডের প্রধান প্রধান সড়ক, দোকানপাট ও বাজার প্রদৰিণ করে তামাকের ৰতিকর বিষয় সম্পর্কে জনসাধারণকে অবহিত করে। এসময় ১৯ নং ওয়ার্ডে অবসি’ত বিভিন্ন তামাকের দোকান থেকে তামাক কোম্পানিগুলোর অবৈধ ও আইন বহির্ভুত বিজ্ঞাপন অপসারণ করা হয়।
এসময় খাবার হোটেলগুলোতে সাইনেজ টাঙ্গানো এবং তামাকমুক্ত নগরী গড়ার পৰে জনসাধারণের মাঝে লিফলেট বিতরণ করা হয়। ক্যাম্পেইনে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করার পাশাপাশি পাবলিক পেৱসে ধূমপান করলে ধূমপায়ীর আশেপাশে যারা অবস’ান করে তারাও যে সমান স্বাস’্যহানির মধ্যে পড়ে সে বিষয়ে জনসাধারণকে অবহিত করা হয়।
ক্যাম্পেইনে অন্যদের মধ্যে এসিডি’র প্রোগ্রাম অফিসার তুহিন ইসলামসহ ১৯ নং ওয়ার্ডের গণমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং যুবসমাজ উপসি’ত ছিলেন।