শিরিন সুলতানা কেয়া: সামনেই পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। এই ঈদে ধর্মপ্রাণ মুসলমান পশু কোরবানি দেবেন। কোরবানির গোসতো বিতরণের পরও নিজেদের জন্য থাকবে নির্দিষ্ট একটি অংশ। আর সেই গোসতো সংরড়্গণের জন্য প্রয়োজন হবে রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজের। তাই কোরবানির ঈদের আগে বিক্রি বেড়েছে রাজশাহীর ফ্রিজের শো-রম্নমগুলোতে। এসব শো-রম্নমে আবার চলছে ছাড়ের ছড়াছড়ি।
গত শনিবার নগরীর বিভিন্ন ফ্রিজের শো-রম্নমগুলোতে ঘুরে এই চিত্র দেখা যায়। একদিকে যেমন ক্রেতারা নিজের পছন্দমতো মডেলের ফ্রিজ কিনতে ব্যসত্ম হয়ে পড়েছেন তেমনি শো-রম্নমের কর্মচারীরাও ব্যসত্ম হয়ে পড়েছেন বিভিন্ন ফ্রিজ সম্পর্কে তাদের তথ্য জানাতে। সবমিলিয়ে বেচাকেনা জমেছে বেশ।
নগরীর কুমারপাড়ায় যমুনা ইলেকট্রনিঙ অ্যান্ড অটোমোবাইলের শো-রম্নমে গিয়েছিলেন কৃষি কর্মকর্তা মো. আকতারম্নজ্জামান। তিনি বলেন, আমি চারঘাটের নন্দনগাছি থেকে এখানে ফ্রিজ কিনতে এসেছি। বাসায় একটি ফ্রিজ আছে। কিন্তু গ্রামের বাড়ির জন্য আরেকটি কিনতে এসেছি।
যমুনা ইলেকট্রনিঙ অ্যান্ড অটোমোবাইলের শো-রম্নমের ব্যবস্থাপক শহিদুল ইসলাম বলেন, জুলাইয়ের প্রথম দিন থেকে ২০ তারিখ পর্যনত্ম বিক্রি স্বাভাবিক ছিলো। এরপর থেকে বিক্রি অনেক বেড়ে গেছে। সামনে আরও বাড়বে বলে আশা করছি। ঈদ উপলড়্গে বিশেষ ছাড় রয়েছে।
তিনি জানান, ২৪৮ লিটার ধারণড়্গমতার যমুনা ফ্রিজের দাম ৩৪ হাজার ৩৪৪ টাকা থেকে কমে এখন ৩১ হাজার ৪৮২ টাকা হয়েছে। ২৬৩ লিটারের ফ্রিজের দাম ৩৪ হাজার ২৪ টাকা হলেও এখন ৩১ হাজার ১৮৫ টাকা। ৩২৯ লিটার ধারণ ড়্গমতার ফ্রিজের দাম ৩৬ হাজার ৫০৪ টাকা হলেও এখন দাম পড়বে ৩২ হাজার ১১০ টাকা। ঈদ উপলড়্গেই এই ছাড় বলেও তিনি জানান।
নগরীর আলুপট্টির মোড়ের ওয়ালটন পস্নাজার ব্যবস্থাপক আলতাফ উদ-দৌলস্না বলেন, গতবারের চেয়ে এবার বিক্রি বেশি হচ্ছে। সামনের কয়েকদিনে আরও বেশি হবে। তবে পণ্যের ওপর ডিসকাউন্ট নেই তাদের। আছে বিশেষ মিলিয়নিয়ার অফার। ফ্রিজ কিনে রেজিস্ট্রেশন করলেই এক মিলিয়ন বা ১০ লাখ টাকা পাওয়ার সুযোগ দিচ্ছে ওয়ালটন।
নগরীর সাহেববাজারের এলজি শো-রম্নমের ব্যবস্থাপক মোকতাদির রহমান বলেন, গত ২ মাসে বিক্রি অনেক বেড়েছে। সামনের কয়েকদিনে আরও বেশি বাড়বে। ঈদ উপলড়্গে এলজিও বিশেষ মূল্য ছাড় দিচ্ছে।
তিনি জানান, এলজির ৫০২ ধারণ ড়্গমতার ফ্রিজের মূল্য ৯০ হাজার ৬৯০ টাকা হলেও এতে ৪ হাজার ৭৯০ টাকা ছাড় দেওয়া হচ্ছে। আর ৪০২ লিটার ফ্রিজের দাম ৭৩ হাজার ৭৯৫ টাকা হলেও এতে ছাড় দেয়া হচ্ছে ৩ হাজার ৮৯৫ টাকা। ২৬৯ লিটারের ৪২ হাজার ৩৮০ টাকার ফ্রিজে ছাড় রয়েছে ২ হাজার ২৩৫ টাকা।
নগরীর আরও কয়েকটি ফ্রিজের শো-রম্নমের ব্যবস্থাপকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিবছরই কোরবানির ঈদের আগে ফ্রিজের বিক্রি বাড়ে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তবে গত বছরের কোরবানির ঈদের সময়ের তুলনায় ফ্রিজের বিক্রি এবার কিছুটা কম। এবার গ্রীষ্মে প্রচুর পরিমাণে এসি বিক্রি হওয়ায় ফ্রিজ বিক্রি কিছুটা কম বলে তারা মনে করছেন।