এফএনএস: দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে কারখানা নীলফামারীর সৈয়দপুর ঈদুল আজহায় অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনে ৪০ কোচ মেরামতের কাজ চলছে। গেল বছর এ লক্ষ্যমাত্রা ৭৫টি থাকলেও এবারে কারখানায় জনবল সঙ্কটে তা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। সূত্র জানায়, রেলওয়ে কারখানার বগি মেরামত শপে ওইসব কোচ মেরামতের কাজ পুরোদমে চলছে। এসব কোচ মেরামতের শেষ করে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে রেলওয়ের পরিবহন বিভাগে হস্তান্তর করা হবে।
যা দিয়ে ঈদের বিশেষ ট্রেন ও আন্তঃনগর ট্রেনে সংযোজন করা হবে রেলওয়ে কারখানায় মঞ্জুরকরা ২ হাজার ৮৩৪ জন জনবলের বিপরীতে বর্তমানে রয়েছে ১ হাজার ৪৯ জন। এর মধ্যে ডিইইতে ৩৩৫ জনের বিপরীতে ১৬১ জন, ডিএমওতে ১৫৩ জনের বিপরীতে ৮৫ জন, এইএন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৭৫ জনের বিপরীতে ৪২ জন, ডিসিওতে ৩০৮ জনের বিপরীতে ১১৬ জন, এবিই/ফিল্ড ৪৭ জনের বিপরীতে ৩৪ জন কর্মরত রয়েছেন। এ কারখানায় ১ হাজার ২০০ প্রকার যন্ত্রাংশ তৈরি হয়ে থাকে। প্রতিবছর ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা ট্রেন যাত্রাকে বেছে নিয়ে থাকেন। সে কারণে রেলপথে চাপও থাকে অনেক বেশি। কিন’ কোচ সঙ্কট ও অন্যান্য কারণে তা সম্ভব হয়ে উঠেনা। এসব কোচে কিছুটা হলেও যাত্রী সাধারণ সুবিধা পাবেন বলে মনে করছেন সংশিৱষ্টরা।
বর্তমানে জনবল সঙ্কটে কারখানায় ‘লাইফ সাপোর্ট’ চলছে বলে সচেতনমহল মনে করেন। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) জয়দুল ইসলাম জানান, ঈদে ঘরমুখো যাত্রী সাধারণের কথা বিবেচনায় নিয়ে এবং ঈদযাত্রায় রেলওয়েতে অধিক সংখ্যক যাত্রী পরিবহন করতে কারখানায় অতিরিক্ত বগি মেরামত করা হচ্ছে। আগামী আগস্টের প্রথম সপ্তাহে সবকটি বগি ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর সম্পন্ন হবে। বগিগুলো দিয়ে প্রতিটি আন্তঃনগর ট্রেনে যুক্ত করে সংখ্যা বাড়ানো হবে। কারখানায় জনবল সংকটের মধ্যেও এ কাজ ভালোভাবে এগিয়ে চলছে বলে জানান তিনি।