স্টাফ রিপোর্টার: প্রথমবারের মতো বালিশ পেলেন রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের বন্দিরা। গতকাল বুধবার সকালে কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার হালিমা খাতুন বন্দিদের মাঝে বালিশ বিতরণ করেন। আরামে ঘুমানোর জন্য এদিন কারাগারের হাজতি এবং কয়েদী- সবাই একটি করে তুলার বালিশ পেয়েছেন।
কারাগারের বন্দিরা এতো দিন শোয়ার জন্য শুধু তিনটি করে কম্বল পেতেন। এর মধ্যে একটি কম্বলকে বালিশ হিসেবে ব্যবহার করতেন তারা। গত বছর থেকে দেশের বিভিন্ন কারাগারে বালিশ দেওয়া শুরম্ন হয়। এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহী কারাগারের বন্দিদের মাঝেও বালিশ বিতরণ করা হলো।
রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার হালিমা খাতুন জানান, গত সপ্তাহে বালিশগুলো ঢাকা থেকে আসে। তারপর কারাগারের দর্জি কয়েদীরা এগুলো ব্যবহার উপযোগী করে তোলেন। এরপরই বালিশগুলো কারাগারের ১ হাজার ৯৬৩ জন হাজতি ও ৮০৩ জন কয়েদীকে দেয়া হলো।
বালিশ বিতরণের সময় রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মোহাম্মদ হাবীবুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে দেশের বিভিন্ন কারাগারের মতো গত ১৬ জুন রাজশাহী কারাগারেও বন্দিদের সকালের নাসত্মায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। এখন বন্দিরা সকালের নাসত্মায় সপ্তাহে দুই দিন খিচুড়ি, চার দিন সবজি ও রম্নটি এবং এক দিন হালুয়া-রম্নটি পাচ্ছেন।
কারা কর্তৃপড়্গ জানিয়েছে, ১৮৬৪ সাল থেকে কারাগারে একজন কয়েদি পেতেন ১৪ দশমিক ৫৮ গ্রাম গুড় এবং ১১৬ দশমিক ৬ গ্রাম আটার একটি রম্নটি। আর সমপরিমাণ গুড়ের সঙ্গে একজন হাজতি পেতেন ৮৭ দশমিক ৬৮ গ্রাম আটার একটি রম্নটে। ১৫৫ বছর পর সেই নাসত্মার পরিবর্তন হয়।