স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে স্ত্রীকে জবাই করে হত্যার পর পুলিশের কাছে আত্মসমপর্ণ করেছে স্বামী। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে দামকুড়া থানার কলারটিকর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি উক্ত এলাকার খোকার ছেলে শরিফূল ইসলাম ওরফে রেন্টু (৩৮)। নিহত লাভলি (২৮) রেন্টুর স্ত্রী এবং কর্ণহার থানার দেবেরপাড়া এলাকার বাবুলের মেয়ে। গতকাল শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদনত্ম শেষে তার পরিবারের কাছে হসত্মানত্মর করেছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রেন্টুর স্ত্রী লাভলির পরকীয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে তাদের সংসারে অশানিত্ম লেগেই ছিল। এ নিয়ে কলারটিকর গ্রামে গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে একাধিকবার শালিশ-বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তাদের বিয়ের বয়স প্রায় ১২ বছর। তারা স্বামী-স্ত্রী একটি সংস্থা থেকে প্রায় ৪ লড়্গ টাকা ঋণ নিয়ে দালান বাড়িও করেছে। তাদের দুটি সনত্মান রয়েছে। বড় ছেলে অষ্টম শেণিতে পড়ে আর ছোট মেয়ের বয়স ৫ বছর। বার বার শালিশ-বৈঠকে আপস-মিমাংসার পরও লাভলি তার পরকীয়া অব্যাহত রাখে। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বাকবিত-া হয়। এক পর্যায়ে রেন্টু ড়্গিপ্ত হয়ে তার স্ত্রী লাভলির মাথায় রড দিয়ে সজোরে আঘাত করে। এরপর সে ছুরি দিয়ে তাকে জবাই করে এবং এক পায়ের রগ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। রাত ৩টার দিকে রেন্টু থানায় গিয়ে হত্যার স্বীকারোক্তি দেয়।
গতকাল সকালে পুলিশ নিহত লাভলির লাশ উদ্ধার করে রামেক হাসপাতাল মর্গে ময়না তদনেত্মর জন্য প্রেরণ করে। ময়না তদনত্ম শেষে লাশটি তার পরিবারের কাছে হসত্মানত্মর করা হয়। এ ব্যাপারে দামকুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাজহারম্নল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে থানায় এসে হত্যাকারী রেন্টু নিজেই তার স্ত্রীকে জবাই করে হত্যার কথা স্বীকার করে। ওসি আরও বলেন, তার বিরম্নদ্ধে হত্যা মামলা হয়েছে।