স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে ইলমিত্র শিল্পী সংঘের অষ্টম বার্ষিক সম্মেলন গতকাল শুক্রবার নগরের কুমারপাড়াস’ নিজ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলন শেষে কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নাট্য ব্যক্তিত্ব এসএম আবু বকরকে সভাপতি ও গৌতম পালকে সাধারণ সম্পাদক করে আগামী এক বছরের জন্য ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিঠি গঠন করা হয়।
সকাল ১০টায় এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রথম আলোর রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক আবুল কালাম মুহম্মদ আজাদ। উদ্বোধনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন কণ্ঠশিল্পী সেলিম রেজা। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এসএম আবু বকর, তাপস মজুমদার, নিশা সাহা ও গৌতম পাল।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধক বলেন, একটি সংকটময় সাংস্কৃতিক অবস’ার মধ্য দিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। এই সংকট থেকে মুক্তির জন্য এই ছোট ছোট শিশুদের মানুষের মতো মানুষ করে তোলার বিকল্প নেই। ইলামিত্র শিল্পী সংঘ সেই কাজটিই করছে। তিনি বলেন, ইলামিত্রের নাম মনে আসার সঙ্গে সঙ্গে বুকের ভেতরে যেন আন্দোলনের আগুন জ্বলে ওঠে। তার নাম নিয়ে এই সংগঠন যে গান গেয়ে যাচ্ছে তা এদেশের মানুষকে জাগাতে পারে। সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই এই গানের শিল্পীরা পাশবিকতা, সম্প্রদা-য়িতকতা, সন্ত্রাসবাদ ও ধর্ষণের সংস্কৃতি থেকে দেশকে টেনে তুলতে পারে।
এসএম আবু বকর বলেন, বিদ্যালয়ের প্রতিযোগিতা সাংস্কৃতিক চর্চাকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করছে। খুব ভালো রেজাল্টের চেয়ে খুব ভালো মানুষ হওয়ার প্রতিযোগিতার প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। এ জন্য প্রত্যেকের সংস্কৃতিময় একটি বিশুদ্ধ জীবন দরকার।
দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এই পর্বের সভাপতিত্ব করেন এসএম আবু বকর। এতে শোকপ্রস্তাব পাঠ করেন নিশা সাহা। অষ্টম সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের প্রতিবেদন পেশ করেন গৌতম পাল। এতে তিনি এক বছরের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের চিত্র তুলে ধরেন।
প্রতিবেদনের শুর্বতে তিনি বলেন, আজ গোটা বিশ্ব সন্ত্রাস কবলিত। সন্ত্রাসের পেছনে কাজ করছে ধর্মীয় উন্মাদনা, সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্রাজ্যবাদের ব্যবসায়ী স্বার্থ। এর বির্বদ্ধে মানুষ দাঁড় করাতে পারে একমাত্র প্রগতিশীল সংস্কৃতি। সেই সংস্কৃতির চর্চা ও প্রসার আজ সংকুচিত।