নাটোর ও লালপুর প্রতিনিধি: নাটোরে বড়াইগ্রামে কলেজছাত্র আল আমিনকে হত্যা করে গাড়ি ছিনতাই, ডাকাতি, দস্যুতাসহ ১৫টিরও বেশি মামলার আসামি কুখ্যাত শ্যুটার মানিক ওরফে সুমন (৪৮) শুক্রবার দিবাগত রাত রাত ২টার দিকে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। নিহত মানিক পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার পূর্বটেংরী শেরপাড়া এলাকার ইউসুফ আলীর ছেলে।
লালপুর থানা সূত্রে জানা যায়, গত ৫ জুলাই বড়াইগ্রামে দিনের বেলায় কলেজছাত্র আল আমিনকে গুলি করে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের মামলায় শ্যুটার মানিককে আটক করে বড়াইগ্রাম থানা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সম্প্রতি লালপুরে অলোক বাগচি নামক এক ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা করে মোটরসাইকেল ছিনতাই এবং আরও দু জন অটোচালককে গুলি করে অটো ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে মানিক। বড়াইগ্রাম থেকে লালপুর থানা এলাকায় অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের উদ্দেশ্যে আসার পথে গোপালপুর-বনপাড়া সড়কের গোপালপুর তোফাকাটা মোড় নামক স্থানে পৌঁছলে শ্যুটার মানিকের সহযোগীরা পুলিশের গাড়ি লড়্গ্য করে গুলি ছুঁড়ে। পুলিশও আত্মরড়্গার্থে পাল্টা গুলি ছুড়তে থাকে। এ সময় সুযোগ বুঝে মানিক পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে পালানোর চেষ্টাকালে সে গুলিবিদ্ধ হয়। উভয় পড়্গের গোলাগুলির এক পর্যায়ে মানিকের সহযোগীরা পালিয়ে যায়। এ সময় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মানিককে পুলিশ লালপুর থানা স্বাস্থ্য কমপেস্নঙে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
লালপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, হত্যাসহ মোটরসাইকেল ও অটো ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত শ্যুটার মানিকের বিরুদ্ধে ঈশ্বরদী, লালপুর, বড়াইগ্রামসহ বিভিন্ন থানায় ১৫ টিরও বেশি মামলা রয়েছে। তার অপর সহযোগীদের আটকের অভিযানের চেষ্টা চলছে।