শিরিন সুলতানা কেয়া: টানা তাপদাহের পর রাজশাহীতে এখন চলছে বৃষ্টিপাত। এতে ঠা-া হয়ে উঠছে প্রকৃতি। তবে যখন বৃষ্টি হচ্ছে না তখনই দেখা দিচ্ছে ভ্যাপসা গরম। এমন পরিবর্তিত আবহাওয়ায় ছোট-খাটো রোগ-বালাইয়ে আক্রানত্ম হচ্ছেন মানুষ। বিশেষ করে জ্বর, সর্দি, কাশি পিছু ছাড়ছে না। এর সঙ্গে গলাব্যাথা তো আছেই। এমন হলে আক্রানত্মরা বলছেন, ঠা-া লেগেছে।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বর্হিবিভাগে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বৃষ্টি শুরম্ন হওয়ার সাথে সাথে জ্বর, সর্দি, কাশির রোগির সংখ্যা বেড়ে গেছে। এসব রোগে আক্রানত্ম হয়ে গত বৃহস্পতিবারই প্রায় সাড়ে তিনশ রোগি বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে শিশুদের সংখ্যাই বেশি। অন্য সময় এসব রোগির সংখ্যা থাকে দিনে একশ থেকে দেড়শ জন।
চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এসব অসুখের মূল কারণ আবহাওয়ার পরিবর্তন। এখন বৃষ্টি হচ্ছে। রাতে ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে। আবার বৃষ্টি থেমে গেলে সকালে গরম লাগছে। এই আবহাওয়ায় জীবাণুর প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তাই মানুষ ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া ঘটিত রোগ-বালাইয়ে আক্রানত্ম হচ্ছেন। এখন মশার কারণে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রানত্ম হওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে।
গত শুক্রবার সকাল থেকে রাজশাহীর আকাশে ছিল ঝলমলে রোদ। তখন তাপমাত্রা বেড়ে যায়। কিন’ বিকাল থেকে শুরম্ন হয় বৃষ্টি। এতে হঠাৎ করেই আবার তাপমাত্রা কমে আসে। রাতেও ঠা-া অনুভূত হয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন, এ ধরনের আবহাওয়ায় অনিয়ম করলে ঠা-া লেগে যাওয়াটা স্বাভাবিক। এর ফলে দেখা দিতে পারে জ্বর, কাশি, সর্দি, গলাব্যথার মতো রোগ-বালাই।
গতকাল শনিবার দুপুরে নাসরিন আখতার (২০) নামে এক কলেজছাত্রীকে রামেক হাসপাতালের জরম্নরি বিভাগে নিয়ে আসেন তার অভিভাবকরা। নাসরিনের বাড়ি মহানগরীর শিরোইল কলোনী এলাকায়। নাসরিন জানান, দুই দিন ধরে প্রচ- জ্বর। সঙ্গে কাশি এবং গলাব্যথা। বাড়ির পাশের ফার্মেসি থেকে ওষুধ নিয়ে দুই দিন ধরে খেয়েছেন। কোনো উপকার না পাওয়ায় তাকে ভর্তি করার জন্য আনা হয়েছে।
রামেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক মাহাবুবুর রহমান বাদশা বলেন, আবহাওয়ায় তাপমাত্রার তারতম্যের কারণে অনেকেই এখন সর্দি-কাশি বা গলাব্যথার মতো রোগে আক্রানত্ম হচ্ছেন। তবে এগুলো এমন কোনো বড় ব্যাপার নয়। তবে একবার ঠান্ডা লাগলে তা সারতে অনত্মত এক সপ্তাহ লাগবেই। কাশিও থাকতে পারে বেশ কয়েক দিন। এ নিয়ে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। তবে ঠা-া যেন না লাগে সে জন্য এখন সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন তিনি।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যনত্ম বৃষ্টি হয়নি। তবে ১২টা ১৫ মিনিট থেকে ১০ মিনিট রাজশাহীতে বৃষ্টি হয়েছে। আবার বেলা ৩টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যনত্ম বৃষ্টি হয়েছে। মোট বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ৮ মিলিমিটার। এ দিন রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা পাওয়া গেছে ৩৪ এবং সর্বনিম্ন ২৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।