সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: সাপাহার উপজেলা এখন গড়ে প্রতিদিন এখানে প্রায় ৫ কোটি টাকার আম কেনা-বেচা হচ্ছে।
প্রায় ১০ বছর আগে এই উপজেলায় বেশ কয়েক জন কৃষক তাদের ধানের উঁচু জমিতে ধান চাষাবাদের পরিবর্তে আম্রপালি আমের চাষ করেন। ছোট ছোট এসব গাছ রোপনের এক বছর পর হতেই গাছে আম ধরতে শুরু করে এবং আমের গুণগত মান অন্যান্য আমের তুলনায় বেশ ভাল হওয়ায় বাজারে বেশ চড়া দামেও বিক্রি হয় সাপাহারের আম। সেদিক থেকে একের পর এক কৃষক দিন দিন তাদের ধানচাষের জমির সংখ্য কমিয়ে আমচাষে মনোনিবেশ করতে থাকে। বর্তমানে সাপাহার উপজেলায় প্রায় সাড়ে ৪ শ হেক্টর জমিতে এই আমের চাষ করা হয়েছে। গত বছর আমের বাজার বেশ মন্দা গেলেও এবছর আমের বাজার বেশ চড়া। বর্তমানে প্রতিমণ রূপালি (আম্রপালি) আম ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার ৫ শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এবছর এই উপজেলার কৃষকরা ধানচাষে ব্যাপক ৰতির সম্মুখীন হয়েছিল কিছুটা হলেও সে ৰতি পুষিয়ে নিচ্ছে আমে। বর্তমানে বর্ষা মৌসুমের এক মাস অতিবাহিত হলেও কাঙিৰত কোন বৃষ্টিপাত না হওয়ায় কৃষকরা আমন আবাদ বাদ দিয়ে প্রতিযোগিতামূলকভাবে তাদের আমন চাষাবাদের জমিতে আমগাছ রোপণ করেছেন।
উপজেলার কৃষকরা যে হারে আমের বাগান তৈরি করে চলেছে তাতে করে আগামি দু এক বছরে হয়ত এই উপজেলায় ধান চাষের জমি খুঁজে পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়বে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন। বর্তমানে সাপাহার উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী পোরশা, পত্নীতলা, ধামইরহাট উপজেলার আমগুলিও কেনা-বেচা হচ্ছে সাপাহারে। গত কয়েক বছর হতে সাপাহারে আমের বাণিজ্য কেন্দ্র গড়ে উঠলেও এবছর তার পরিধি প্রায় দ্বিগুণ হারে বেড়ে গেছে। দেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজধানী ঢাকা, ফরিদপুরের মাদারী পুর, গোপালগঞ্জ, ময়মনসিং, বরিশাল, ফেনী, নোয়াখালি, কুমিলৱাসহ বেশ কিছু এলাকা থেকে শত শত আমব্যাবসায়ী এসেছে নওগাঁ জেলার সাপাহারে। সাপাহার উপজেলার হাসপাতালের মোড় হতে গোডাউন পাড়া পর্যন্ত প্রায় ২কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দুই শতাধিক আমের আড়ত গড়ে উঠেছে। আড়তগুলি মেইন রাস্তার উভয় পাশে হওয়ায় প্রতিদিন সকাল ৯টা হতে বেলা ৩টা পর্যন্ত রাস্তায় জ্যাম লেগে থাকায় স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিৰার্থী ও জরুরি কাজে নিয়োজিত অ্যামবুলেন্স, বিভিন্ন অফিসের গাড়ি ও পথচারিরা পড়ছে বিপাকে। এই দুই কিলোমিটার রাস্তা পার হতে তাদের সময় লাগছে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা। সাপাহারে এবারে শেষ পর্যন্ত প্রায় ৩ শ কোটি টাকার আমের বাণিজ্য হবে বলে আম ব্যাবসায়ী সমিতির সভাপতি কার্তিক সাহাসহ স’ানীয় অভিজ্ঞমহল মনে করছেন।