রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগরে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ করে দুই দিন পর রাতে আঁধারে মেয়ের বাড়িতে রেখে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় মামলা হওয়ার এক মাস অতিবাহিত হলেও প্রধান আসামি ধর্ষক মোহন আলীকে রহস্য জনক কারণে রাণীনগর থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মিরাট ইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামে।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মিরাট ইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামের অটোভ্যান চালক আজিজার রহমানের কলেজ পড়-য়া ছেলে মোহন আলী (২৩) পাশের একটি গ্রামের জনৈক ব্যক্তির মেয়ে ৭ম শ্রেণির ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে মোহন আলী গত ৭ জুন কৌশলে মেয়েটিকে নিয়ে অজানার উদ্দেশে পাড়ি জমায়। তারা বিভিন্ন জায়গায় রাত যাপন করে নানা প্রলোভন দিয়ে মোহন কয়েক দফা মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে বিয়ে না করে অপহরণের ২ দিন পর রাতে মেয়ের বাবার বাড়িতে রেখে মোহনসহ তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। ধর্ষিতা ছাত্রীর মা বাদি হয়ে রাণীনগর থানায় ধর্ষক মোহনসহ ৫ জনকে আসামি করে গত ২৪ জুন মামলা দায়ের করলে সকল আসামি গা-ঢাকা দেয়।
মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মূল আসামি মোহনসহ সবাই পলাতক। তাদের বাড়িতে বর্তমানে তালা ঝুলছে। তবে আসামিদের গ্রেপ্তারের পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত আছে বলে তিনি জানান।