৯৯৯ নম্বরে ফোন, ভয়ঙ্কর কিং কোবরা উদ্ধার

  • 7
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: জাতীয় জরুরি সেবা “৯৯৯” নম্বরে ফোন করে সহায়তা চাওয়ার পর মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে একটি কিং কোবরা সাপের প্রাণ রক্ষা পেয়েছে। শুক্রবার (১৪ আগস্ট) সকালে উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের মাইজডিহি পাহাড় এলাকার ভাগলপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, সকালে মাইজডিহি রাবার বাগান থেকে একটি সাপ বের হয়ে পূর্ব ভাগলপুর গ্রামের সড়কে চলে আসে। সাপ দেখা মাত্র গ্রামবাসী লাঠিসোটা হাতে নিয়ে সাপটিকে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। ওই সময় সাজ্জাদ নামে এক যুবক সাপটি মারতে মানুষকে বাধা দেন এবং সাথে সাথে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সহায়তা চান। জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে খবর পেয়ে শ্রীমঙ্গলের বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন সাপটিকে উদ্ধার করে।

বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বলেন, “সকাল ৮টার দিয়ে ৯৯৯ থেকে আমাদের মোবাইলে কল করে সাপটি উদ্ধারের জন্য বলা হয়। তখন আমরা গিয়ে সাপটি উদ্ধার করে নিয়ে আসি।”

তিনি বলেন, “গায়ের রং ও স্বভাব দেখে মনে হচ্ছে এটি ভয়ানক কোবরা (স্থানীয়ভাবে কালা খরিস) সাপ। এটি কি জাতের কোবরা তা বলা যাচ্ছে না। ২-১দিনের মধ্যে সাপটি লাউয়াছড়া বনে অবমুক্ত করা হবে।”

এদিকে, পরিচয় নিশ্চিত হতে হাতে আসা সাপটির ছবি পাঠানো হয় বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলার কাছে। ছবি দেখে সাপটিকে শঙ্খচূড় বা কিং কোবরা (King Cobra) হিসেবে শনাক্ত করেন।

তিনি বলেন, “এটি পৃথিবীর সর্ববৃহৎ বিষধর সাপ। এর ইংরেজি নামে কোবরা থাকলেও প্রকৃতপক্ষে এটি গোখরা সাপ নয় বরং সম্পূর্ণ আলাদা গণের (Ophiophagus) সাপ। এই গণটির আক্ষরিক অর্থ ‘সাপ খাদক’। সাপটি সত্যিকার অর্থেই অন্যান্য সাপ খায়। এর বিষ নিউরোটক্সিক, তাই প্রাণীর স্নায়ুতন্ত্রকে অকেজে করে ফেলে। অর্থাৎ এর একটি দংশনেই যে কোনো প্রাণীর মৃত্যু হতে পারে।”

তিনি আরও বলেন, “সু্ন্দরবনে সাপটির প্রচুর দেখা যায়। তবে সিলেট অঞ্চলে খুবই কম পরিমাণে রয়েছে। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন-২০১২ অনুযায়ী এই প্রজাতিটি সংরক্ষিত। তাই এটি হত্যা বা কোনো ক্ষতি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।”

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ