৩০ লক্ষাধিক টাকা গায়েব করা সেই চেয়ারম্যান বরখাস্ত

  • 9
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের ৩০ লক্ষাধিক টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে নিজের ব্যাংক হিসেবে স্থানান্তরিত করার অভিযোগে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. শামছুজ্জোহা যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বহিষ্কারাদেশ কার্যকর করে প্যানেল চেয়ারম্যান-১ আবু মুছাকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এ নিয়ে গত বছরে গণমাধ্যমে প্রকাশিত ‘এনায়েতপুরে ইউপির ৩০ লাখ টাকা গায়েব’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষিত হয়।

প্রজ্ঞাপন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জালালপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ ২০১৮-২০১৯ ও ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের লোকাল গভর্ন্যান্স প্রজেক্টের (এলজিএসপি) -৩ প্রকল্পের ৩০ লাখ ১৫ হাজার ৮৪৪ টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে এলজিএসপি ব্যাংক হিসাব হতে ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসেবে স্থানান্তরিত করে। এটা স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে এবং সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক জালালপুর ইউপি চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ ও সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য সালেহা বেগমকে সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০১৯ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেন।

পরে স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় তাদেরকে স্বীয় পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে গত ১৭ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব আবু জাফর রিপন সাক্ষরিত একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এ আদেশ জারি করা হয়।

এ বিষয়ে জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদ্য বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ বলেন, ইতোমধ্যে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। তারপরও আমার বিষয়ে অবিচার করা হয়েছে। ষড়যন্ত্র করে আমাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ