- সোনালী সংবাদ - https://sonalisangbad.com -

হড়গ্রামে স্থায়ী কাঁচাবাজার নির্মাণ খুবই প্রয়োজন

পাকিস্তান আমলের হড়গ্রাম কাঁচাবাজারটি নিউমার্কেটে রূপান্তর হওয়ায় নগরীর পশ্চিমাঞ্চলে কোর্ট স্টেশন রাস্তার দুই পাশেই গড়ে ওঠে কাঁচাবাজার। রাস্তার ওপর দোকানদারি করার বিড়ম্বনায় অতিষ্ঠ হয়েই পূর্ব নির্ধারিত স্থানে স্থায়ী কাঁচাবাজার প্রতিষ্ঠার দাবিতে ব্যবসায়ীরা রাস্তায় নেমে এসেছেন। তারা কাঁচাবাজার নির্মাণে সিটি কর্পোরেশনের গৃহীত প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন।

হড়গ্রাম বাজার থেকে কোর্ট স্টেশন সড়কের দুই পাশের কাঁচাবাজারে রাস্তায় চলাচলকারী যানবাহন ও পথচারীদের অসুবিধাই হয়নি। এর ফলে ব্যবসায়ীদেরও নানা ঝুঁকি সামলাতে হতো। অথচ পাকিস্তান আমল থেকেই বাজারের জন্য সাড়ে ছয় বিঘা জমি নির্ধারিত ছিল। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন ধারায় সেখানে স্থায়ী কাঁচাবাজার নির্মাণের প্রকল্প গৃহীত হয়েছে। এ জন্য সিটি মেয়র ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের উদ্যোগের কথা কারও অজানা নয়। কিন্তু সম্প্রতি মহল বিশেষ কাঁচাবাজার নির্মাণের বিরোধিতা করায় ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্ধ হয়ে রাস্তায় নেমে এসেছেন।

এই বিরোধিতাকারীদের চাঁদাবাজ হিসেবে চিহ্নিত করে তারা রাস্তার দুই পাশে ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে দাঁড়িয়ে নির্ধারিত স্থানেই বাজার নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন। অন্যথায় নগর ভবন ঘেরাওয়ের ঘোষণা দিয়েছেন। শুধু ব্যবসায়ীরাই নয়, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকেও একই দাবিতে ভিন্নভাবে কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

যে কোন উন্নয়ন প্রকল্প নেয়া হলেই মহল বিশেষের বিরোধিতা নতুন নয়। কেউ যদি ক্ষতিগ্রস্ত হন তবে ক্ষতিপূরণের বিধান রয়েছে। এ নিয়ে আপত্তি থাকলে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতার পথও খোলা আছে। কিন্তু জনস্বার্থে গৃহীত উন্নয়নের বিরোধিতা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। তাছাড়া স্থায়ী কাঁচাবাজার প্রতিষ্ঠার মতো জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের বিরোধিতার প্রশ্নই ওঠে না।

নগরীতে অঞ্চলভিত্তিক স্থায়ী ও মানসম্পন্ন বাজারের অভাবেই সাহেববাজারে মানুষের ভিড় মাত্রা ছাড়া হয়ে ওঠে। এতে যানজট ছাড়াও জনসমাগমে নগরীর কেন্দ্রস্থল মাঝে মধ্যেই অচলাবস্থার শিকার হয়। অঞ্চলভিত্তিক কাঁচাবাজার প্রতিষ্ঠা হলে ব্যবসা-বাণিজ্য বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে সামগ্রিক পরিবেশের উন্নতি হবে, বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই হড়গ্রাম এলাকায় স্থায়ী কাঁচাবাজার প্রকল্পের দ্রুত বাস্তবায়নই সকলের কাম্য। এর বিরোধিতা কোনোভাবেই বাঞ্ছনীয় নয়।

সোনালী/এমই