সীমানা জটিলতায় আটকে আছে পাঁচবিবি পৌর নির্বাচন

অনলাইন ডেস্ক: মেয়র ও কাউন্সিলরদের মেয়াদোত্তীর্ণের ৪ বছর পার হয়ে গেলেও সীমানা নির্ধারণের জটিলতায় আটকে আছে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌরসভার নির্বাচন। দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচন না হওয়ায় রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ নাগরিক সুবিধার তেমন কোন উন্নয়ন হচ্ছে না বলে অভিযোগ পৌরবাসীদের।

তবে পৌর মেয়র বলছেন, স্পেশাল বরাদ্দসহ বিভিন্ন প্রকল্পে পৌর এলাকায় তিনি ব্যাপক উন্নয়নের করেছেন। যথাসময়ে নির্বাচন হোক সেটিও চান তিনি।

এদিকে সাধারণ ভোটাররা চান, পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে ও সার্বিক দিক বিবেচনায় দ্রুত নির্বাচন।

১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌরসভা। এরপর পর্যায়ক্রমে এটি প্রথম শ্রেণীর পৌরসভায় উন্নীত হয়। এ পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১১ সালের ১২ জানুয়ারি। এ নির্বাচনে মেয়র হিসেবে জয়লাভ করেন হাবিবুর রহমান হাবিব।

এরপরেই বাধ সাধে পৌরসভা ও বালিঘাটা ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ নিয়ে। পৌরসভার সীমানা কম হওয়ায় পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান বালিঘাটা ইউনিয়নের কিছু অংশ পৌরসভার অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রস্তাব পাঠান। তারপরেই তার এই প্রস্তাবে বাধ সাধে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন এলাকাবাসী। পরে তারা বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য হাইকোর্টে মামলা করেন। আর এই সীমানা নির্ধারণের মামলা জটিলতায় আটকে যায় পৌরসভা নির্বাচন। এ কারণেই ২০১৬ সালের ৬ মার্চ নির্বাচনের মেয়াদ পার হয়ে গেলেও দীর্ঘ ৪ বছরেও দেয়া হয়নি কোন নির্বাচন।

পৌরবাসীদের অভিযোগ, নির্বাচন না হওয়ার কারণে ও একই জনপ্রতিনিধিরা দীর্ঘ মেয়াদে থাকায় পৌরসভার উন্নয়নসহ নাগরিক সুবিধা থেকে কিছুটা বঞ্চিত হচ্ছেন তারা। রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কার্লভার্ট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। একটু বৃষ্টি হলেই পৌর শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় তাদের।

তারা বলেন, ভোট আমাদের নাগরিক অধিকার। আমরা প্রায় ১০ বছর থেকে ভোট দিতে পারছি না। পৌরসভার প্রতিনিধিত্বে যে কেউ আসুক, পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে অবিলম্বে নির্বাচন দেয়া হোক।

বালিঘাটা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান চৌধুরী বিপ্লব বলেন, মেয়র হাবিব আমাদের ইউনিয়নের সীমানা তার পৌরসভায় নেয়ার জন্য প্রস্তাব দিলে এলাকার লোকজনসহ আমরা এতে বাধা দেই। আমাদের ইউনিয়নের সীমানা আমাদেরই থাকবে। এজন্য ইউনিয়নের কয়েকজন লোক বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেছে। আদালত যে সিদ্ধান্ত দিবে আমরা তা মেনে নেবো।

পাঁচবিবি পৌরসভার মেয়র হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, হিলি স্থলবন্দরের পার্শ্ববর্তী পাঁচবিবি পৌরসভা। এজন্য এ পৌরসভা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তবে এ পৌরসভার সীমানা ছোট হওয়ার কারণে বড় কোন উন্নয়নের প্রকল্প আসে না। তাই সীমানা বাড়ানোর জন্য প্রস্তাব করা হলে সেটি পাশও হয়ে যায়।

মেয়র বলেন, বালিঘাটা ইউনিয়নের সীমানা নিয়ে চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন বাধ সাধে। পরে তারা এ বিষয় নিয়ে আদালতে মামলা করে। সে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় এতদিন থেকে নির্বাচন হয়নি। এতে তো আমার কোন এখতিয়ার নেই। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যে সিদ্ধান্ত দেবে, আমি সেই সিন্ধান্ত মেনে নিতে রাজি আছি।

তিনি আরও বলেন, এ পৌরসভা ছোট হলেও আমি বিভিন্ন সময় অনেক প্রকল্প নিয়ে এসে পৌরসভার অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি এবং বর্তমানেও তা চলমান আছে।

এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম জানান, সীমানা নির্ধারণের মামলা থাকার কারণে এতোদিন ধরে পাঁচবিবি পৌরসভায় নির্বাচন হয়নি। তবে হাইকোর্ট মামলাটি খারিজ করে দিয়েছে। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন থেকে স্থানীয় সরকার বিভাগকে পত্র পাঠানো হয়েছে। পরবর্তীতে তাদের কাছ থেকে মামলা সংক্রান্ত ফাইনাল তথ্য পেলেই পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ