সাব-মেরিন ক্যাবলে পদ্মার চরে গেল বিদ্যুৎ

সোনালী ডেস্ক: পদ্মানদী বেষ্টিত শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার চরআত্রা এবং নওপাড়া ইউনিয়নের প্রায় এক হাজার পরিবারকে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হলো। গতকাল শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে চরআত্রা আজিজিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠ প্রাঙ্গণে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য একেএম এনামুল হক শামীম এ বিদ্যুৎ সংযোগ উদ্বোধন করেন।
পরবর্তীতে দুটি ইউনিয়নসহ ভেদরগঞ্জ, জাজিরা উপজেলার কুন্ডেরচর, কাঁচিকাটা ইউনিয়ন এবং চাঁদপুর জেলার তিনটি ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার পরিবার পাবে এ বিদ্যুৎ সংযোগ। বিদ্যুৎ সংযোগ উদ্বোধন ও সুধী সমাবেশে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম বলেন, শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। বাংলাদেশের প্রত্যেকটি গ্রামে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা তার ঘোষণা বাস্তবায়ন করছি। নির্বাচনের সময় প্রতিশ্রæতি ছিল দ্রæত সময়ের মধ্যে চরবাসীকে বিদ্যুৎ দেয়া হবে। পদ্মার দুর্গম চর হওয়ায় সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে এখানে বিদ্যুতের আলো পৌঁছে দেয়া হলো। উপমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মুজিববর্ষের বিশেষ উপহার হিসেবে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে দুর্গম চরের মানুষ বিদ্যুৎ পেল। তাছাড়া পদ্মা বহুমুখী সেতু দৃশ্যমান এখন।
শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ, নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলার কাঁচিকাটা, চরআত্রা, নওপাড়া, কুন্ডেরচর ইউনিয়ন ও চাঁদপুর জেলার তিনটি ইউনিয়নে প্রায় ২০ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের জন্য একটি ১০ এমভিএ উপকেন্দ্র, ২০ কিলোমিটার ৩৩ কেভি লাইন, ৪০০ কিলোমিটার ১১ কেভি লাইন নির্মাণ বর্তমানে চলমান আছে। ১০০ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ বর্তমানে সম্পূর্ণ করা হয়েছে। এছাড়া ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি ৩৩/১১ কেভি ১০ এমভিএ উপকেন্দ্র নির্মাণ কাজের ৮০ ভাগ কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ কিলোমিটার ৩৩ কেভি সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন সম্পন্ন করা হয়েছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ১০০ ভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন করার লক্ষে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নওপাড়া ইউনিয়নে এক সেট ৩৩ কেভি ডাবল সার্কিট টাওয়ার নির্মাণ করা হবে। ১০ কেটি টাকা ব্যয়ে কাঁচিকাটা ইউনিয়নে এক সেট ৩৩ কেভি ডাবল সার্কিট টাওয়ার নির্মাণ এবং ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে দুই কিলোমিটার ৩৩ কেভি সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন সম্পন্ন করা হবে বলে জানান তিনি।

শর্টলিংকঃ