সরকার বিএনপির গোপন বৈঠকেরও খবর পায়: কাদের

অনলাইন ডেস্ক: বিএনপি যেখানেই গোপন বৈঠক করুক না কেন সব খবরই সরকার পায় বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বৃহস্পতিবার ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এমনটাই দাবি করেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি এবং সাম্প্রদায়িক অপশক্তি একটি বিদেশী সংস্থার সাথে গোপনে বৈঠক করে সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছে বলে গণমাধ্যমে সংবাদ এসেছে। তারা বিদেশে বসে সরকার পতনের জন্য ষড়যন্ত্র করে আবার দেশে নির্বাচনে অংশগ্রহনের কথা বলে। এ থেকে বিএনপির দ্বি-চারিতা এবং ষড়যন্ত্রে রাজনীতি স্পষ্ট হয়। মুখে নির্বাচন আর গণতন্ত্র অন্তরে দ্বি-চারিতা আর ষড়যন্ত্র। এটাই বিএনপির রাজনৈতিক দর্শন।

তিনি বলেন, কখনো জেদ্দা, কখনো আবুধাবি যেখানেই গোপন বৈঠক করুক সব খবরই সরকার পায়। আমরা বলতে চাই, গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র করে কোনো লাভ নেই। রাজনীতি করতে হবে জনগণের জন্য। সরকার পরিবর্তন করতে চাইলে জনমানুষের কাছে আসুন, বিদেশী শক্তি বা কোনো সংস্থা কাছে নয়।

করোনা প্রতিরোধে স্বস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে জনগণের মাঝে উদাসীনতা দেখা দিয়েছে উল্লেখ করে সতর্ক করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ভ্যাকসিন আসছে ভেবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে অনেকের মাঝে গাঁ ছাড়া ভাব দেখা দিয়েছে। অনেকে অবহেলা করছেন এবং মাস্ক পড়ছেন না। কার্যকর ও সর্বজনগ্রাহ্য ভ্যাকসিন কবে আসবে তা এখনও নিশ্চিত নয়।

আসন্ন শীতে সংক্রমনের উচ্চ ঝুঁকির বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কার কথা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকার এ লক্ষ্যে তথ্য ঝুকি মোকাবিলায় নতুন করে প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং মাস্ক পরিধান করাই সবচেয়ে বড় প্রতিষেধক। করোনা সংক্রমন রোধে সচেতনতাই হচ্ছে উত্তম ভ্যাকসিন।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ