শতবছরেও এত বৃষ্টি দেখেনি রংপুর

  • 55
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: শতবছরেও এমন বৃষ্টির কবলে পড়েনি রংপুরবাসী। টানা ১৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪৩৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে অচল হয়ে পড়েছে রংপুর শহর। নগরীর ঘরবাড়ি, অলিগলি, রাস্তাঘাট, খেলার মাঠ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অঙ্গন ও কবরস্থান সবখানেই পানিতে সয়লাব। অবস্থা এমন যে রবিবার পানিবন্দিদের উদ্ধারে নগরীর রাস্তায় স্পিডবোট নামিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

গত শনিবার রাত পৌনে ৯টা থেকে রংপুরে বৃষ্টি শুরু হয়। সারা রাত অবিরাম বর্ষণ শেষে বৃষ্টি থামে রবিবার সকালে। নগরীর পানি নামার একমাত্র বড় পথ শ্যামাসুন্দরী খাল উপচে পড়ে বৃষ্টির পানিতে। পানি ঢুকে পড়ে ঘর-বাড়িতে। নগরীর ছোট নুরপুর কবরস্থানেও পানি ঢুকে পড়ে।

আকবর আলী নামের শহরের সত্তরোর্ধ বাসিন্দা বলেন, ‘মোর জীবনে এত পানি দেখো নাই। বৃষ্টির পানিত মোর ঘরবাড়ি, পুকুর সব ডুবি গেইছে। মোরা কেমন করে ভাত খামো সেই উপায় নাই। কষ্টে আছি।’

নিউ ইঞ্জিনিয়ারপাড়ার এক গৃহবধূ জানান, তার ঘরের ভেতরেই হাঁটু পানি। ফ্রিজসহ অন্যান্য ইলেক্ট্রনিক্সের সরঞ্জমাদি, আসবাবপত্র পানিতে ডুবছে। বাচ্চাদের নিয়ে বড় সমস্যায় দিনপার করতে হচ্ছে।’

এদিকে সকাল থেকে পানিবন্দি মানুষদের উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস। তারা সারাদিনে স্পিডবোটে করে সন্তানসম্ভবা মা, শিশু ও বৃদ্ধসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায় তারা। পানি না নামা পর্যন্ত তারা উদ্ধার কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছেন।

রংপুর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক কেএম শামসুজ্জামান জানান, মুষলধারে অবিরাম বৃষ্টির কারণে নগরীর বেশিরভাগ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। পানির উচ্চতা বেশি থাকায় অনেকে ঘরবন্দি হয়ে পড়েন।

তিনি বলেন, ‘আমরা ভোর ৬টা থেকে স্পিডবোটের মাধ্যমে মুলাটোল, পাকার মাথা ও পালপাড়াসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় উদ্ধার অভিযান চালিয়েছি।’

রংপুর আবহাওয়া অফিস বলছে, টানা ১৪ ঘণ্টার অবিরাম বর্ষণ রংপুরে শতবছরের বৃষ্টিপাতের রেকর্ড অতিক্রম করেছে। সেপ্টেম্বর মাসে গড়ে প্রতি বছর ২২৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। তবে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রবিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত রংপুরে বৃষ্টিপাত হয়েছে ৪৩৩ মিলিমিটার। অর্থাৎ বৃষ্টিপাত অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ করেছে।

এই তথ্য নিশ্চিত করে রংপুর জেলা আবহাওয়া কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তারা নথিপত্র ঘেটে দেখেছেন বিগত ১শ বছরে একটানা এত বৃষ্টিপাত হয়নি। এদিকে রংপুরে সোম ও মঙ্গলবারও হালকা ও মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ