রামেক হাসপাতালেও হবে করোনা শনাক্ত

স্টাফ রিপোর্টার: উত্তরাঞ্চলের বৃহৎ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে এসেছে পলিমার চেইন রিঅ্যাকশন (পিসিআর) মেশিন। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মেশিনটি রামেক হাসপাতালের ল্যাবে নেয়া হয়েছে। স্বল্প সময়ের মধ্যে এ মেশিনের সাহায্যে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু হবে।
রামেক হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, করোনা শনাক্তে পিসিআর ছাড়াও চিকিৎসায় সেবা সংশ্লিষ্টদের জন্য এক হাজার ব্যক্তিগত সুরক্ষা উপকরণ (পিপিই) এসেছে। এছাড়াও এক হাজার পিস মাস্ক, এক হাজার হ্যান্ডগøাভস এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ স্যানিটাইজার পাঠানো হয়েছে।
সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, স্বল্প সময়ের মধ্যেই গণপূর্ত বিভাগ পিসিআরর মেশিনটি স্থাপনের কাজ শেষ করবে। মেশিনটি স্থাপন ও তা পরিচালনার জন্য ঢাকা থেকে বিশেষজ্ঞ আসবেন। মেশিন স্থাপনের পর তারা স্থানীয়ভাবে যারা পরিচালনা করবেন তাদের প্রশিক্ষিত করবেন। আর মেশিনটি স্থাপিত হলে এটির মাধ্যমে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা শুরু করা সম্ভব হবে। আশা করছি, এর মধ্যেই হাসপাতালে করোনা পরীক্ষার পর্যাপ্ত কিটও চলে আসবে।
এদিকে রামেব হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম ফেরদৌস জানান, পিপিই স্বল্পতা কাটাতে এক হাজার পিস পিপিই কাজে দেবে। এছাড়াও এক হাজার পিস মাস্ক, এক হাজার হ্যান্ড-গøভস এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ স্যানিটাইজার পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার এসব পিপিই চিকিৎসা কাজে সংশ্লিষ্টদের মাঝে সরবরাহ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, এতদিন তারা পিসিআর মেশিনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এটি না থাকায় তারা করোনা শনাক্তের কাজে হাত দিতে পারেননি। তাদের চাহিদা মতো শেষ পর্যন্ত মেশিনটি পৌঁছেছে। এখন মেশিনটি স্থাপন ও কিট এসে গেলে রামেক হাসপাতালেই পরীক্ষা করা যাবে। আর এক দিনের মধ্যেই রিপোর্ট পাওয়া যাবে। তবে এখন পর্যন্ত রাজশাহীতে করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি বলেও জানান তিনি।

শর্টলিংকঃ