রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় চালু হচ্ছে ই-ট্রাফিকিং ব্যবস্থা

  • 103
    Shares

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীসহ বিভাগের আট জেলায় এখন থেকে ই-ট্রাফিকিং এর মাধ্যমে ট্রাফিক জরিমানা তাৎক্ষণিকভাবে পরিশোধ করা যাবে। কাউকে ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের দায়ে জরিমানা করা হলে তা পরিশোধ করতে আর থানায় বা ট্রাফিক অফিসে যেতে হবে না। ঘটনাস্থলেই তাৎক্ষনিক সেবা পাবেন লোকজন।

সোমবার রাজশাহী রেঞ্জ পুলিশ অফিসে বিভাগের আট জেলার পুলিশ সুপারসহ (এসপি) ও ই-ট্রাফিকিং সেবাদাতা তিনটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা ও আধুনিক ট্রাফিকিং সিষ্টেমের আওতায় ট্রাফিক জরিমানা সহজীকরণের লক্ষে এ চুক্তি সম্পাদন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট পক্ষসমুহ।

রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতে খায়ের আলম জানান, এ চুক্তির ফলে রাজশাহী রেঞ্জ পুলিশের আওতাধীন আট জেলায় ট্রাফিক জরিমানা আদায় ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ঘটল। পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের আওতাধীন রাজশাহী, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, বগুড়া, জয়পুরহাট, পাবনা ও সিরাজগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপারদের সঙ্গে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানসমুহের মধ্যে এ সংক্রান্ত চুক্তিটি সম্পাদিত হয়েছে। এ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলি হচ্ছে মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক ও আইটিসিএল। চুক্তিকালে এই তিনটি প্রতিষ্ঠানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও এ ই-ট্রাফিকিং সেবায় কারিগরী সহায়তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ফিনটেক কোম্পানি লিমিটেডের কর্মকর্তারাও উপস্থিত থেকে ট্রাফিক জরিমানা সেবা সহজীকরণ চুক্তিটিতে স্বাক্ষর করেন।

এদিকে আগামি কয়েকদিনে সংশ্লিষ্টদের সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণের পরপরই আগামি ২২ জানুয়ারি থেকে রাজশাহী রেঞ্জ পুলিশের আওতাধীন সব জেলা ও থানা ও ট্রাফিক পয়েন্টে এ সেবা প্রদান শুরু হবে। রাজশাহীর রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি আব্দুল বাতেন আরও বলেন, ট্রাফিক ব্যবস্থ্পানায় এটি একটি গুরুত্বপুর্ণ পদক্ষেপ। অনেক সময় ট্রাফিক আইন ভঙ্গের দায়ে কাউকে জরিমানা করা হলে তাকে ট্রাফিক অফিস বা সংশ্লিষ্ট পয়েন্টে গিয়ে সেটি পরিশোধ করতে হয়। এখন এমন ঘটনার ক্ষেত্রে ঘটনাস্থলেই তাৎক্ষণিকভাবে এ জরিমানা দেওয়া যাবে। সেবা গ্রহীতা তার মোবাইল ফোন থেকেই জরিমানা দিয়ে মামলা ঘটনাস্থলেই নিস্পত্তি করে নিতে পারবেন। এতে সময় যেমন বাঁচতে তেমন তাৎক্ষণিকভাবে জরিমানার টাকা সরকারি কোষাগারে সরাসরি চলে যাবে।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ