রাজশাহীতে ৫ লাখ শিশুকে টিকা খাওয়ানো হবে

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরী ও জেলার ৯ উপজেলায় আগামী ১৮ মার্চ হতে ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন। এবার মহানগরে ৯২ হাজার ১৫৪ জন এবং রাজশাহী জেলায় ৪ লাখ ৭ হাজার ২১৪ জন শিশুকে টিকা দেয়া হবে। তা সফলভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গতকাল রোববার আলাদা আলাদা সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১১ টায় নগর ভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত সভাকক্ষে ও বিকাল সাড়ে ৩ টায় রাজশাহী সিভিল সার্জন মিনি সম্মেলন কক্ষে আয়োজন করা হয় এ সংবাদ সম্মেলনের।
রাসিকের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা এবং স্বাস্থ্যরক্ষা ব্যবস্থা স্থায়ী কমিটির সভাপতি ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুজ্জামান টুকুর সভাপতিত্বে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু। এ সময় রাসিকের সচিব আবু হায়াত রহমতুল্লাহ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। নগরীর স্কুলের সংখ্যা ৫৪৭টি, কেন্দ্র সংখ্যা ১০২টি, অস্থায়ী কেন্দ্র ৬০টি, স্থায়ী কেন্দ্র ১২ টি।
এদিকে, রাজশাহী জেলায় হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন সফল করার লক্ষ্যে রাজশাহী সিভিল সার্জন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে সিভিল সার্জন ডা: এনামুল হক বলেন, শত ভাগ হাম-রুবেলা নির্মূলের আগামী ১৮ মার্চ থেকে ১১ এপ্রিল রাজশাহীতে শুরু হচ্ছে হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন। তিনি বলেন, হামের জটিলতাগুলোর মধ্যে নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, অপুষ্টি, এনকেফালাইটিস, অন্ধত্ব ও বধিরতা অন্যতম। গর্ভবতী মা প্রথম ৩ মাসের সময় রুবেলা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে ৯০% ক্ষেত্রে মা থেকে গর্ভের শিশু আক্রান্ত হতে পারে। সেক্ষেত্রে গর্ভপাত এমনকি গর্ভের শিশুর মৃত্যুও হতে পারে অথবা শিশুটি বিভিন্ন জন্মগত জটিলতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। হাম-রুবেলা রোগে এবং এদের জটিলতার হাত থেকে বাঁচার সর্বোৎকৃষ্ট উপায় হচ্ছে সঠিক সময়ে শিশুকে হাম-রুবেলার টিকা দিয়ে সুরক্ষিত করা। হাম-রুবেলা রোগের প্রকোপ থেকে সুরক্ষার জন্য বাংলাদেশ সরকার সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (ইপিআই) মধ্যে নিয়মিত টিকাদান কর্মসূচিতে ৯ মাস বয়সী সকল শিশুকে ১ম ডোজ এমআর টিকা ও ১৫ মাস বয়সী সকল শিশুকে ২য় ডোজ এমআর টিকা সংযুক্ত করেছে। আর এই ক্যাম্পেইনের উদ্যেশ্য হলো কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে নিয়মিত টিকাদান কার্যক্রম জোরদার করা। ৯ মাস হতে ১০ বছরের কমবয়সী সকল শিশুকে এ টিকা প্রদান করা হবে। পূর্বে হামের টিকা বা এমআর টিকা পেয়ে থাকলেও অথবা হাম বা রুবেলা রোগে আক্রান্ত হলেও ঐ বয়সের সকল শিশুকে ১ ডোজ এমআর (হাম-রুবেলা) টিকা দেয়া হবে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বার্ণাবাস হাসদাক এমও (সিএস) সিভিল সার্জন অফিস, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা: মাহবুক হোসেন ও জেলা ইপিআই সিভিল সার্জন অফিসের সুপারিনটেন্ডেন্ট নূর মোহাম্মদ প্রমুখ।
এমআর ক্যাম্পেইন আগামী ১৮ মার্চ হতে ২৪ মার্চ পর্যন্ত স্কুল পর্যায়ে এবং ২য় ও ৩য় সপ্তাহে ২৮ মার্চ হতে ১১ এপ্রিল-২০২০ পর্যন্ত মাঠপর্যায়ে এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। টিকাদান কেন্দ্র হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, নিয়মিত টিকাদান কেন্দ্র, স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র, অতিরিক্ত দুর্গম ও ঝুঁকিপূর্ণ টিকাদান কেন্দ্রসহ এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
এবার রাজশাহী জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৭ হাজার ২১৪ জন শিশু। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২ হাজার ৩৫২টি। কমিউনিটি কেন্দ্র ২ হাজার ৯টি। টিকাদান কর্মি ৭৯৬ জন এবং ভলিন্টিয়ার ৫ হাজার ৬৩১ জন।

শর্টলিংকঃ