রাজশাহীতে চিকিৎসকের মতামতের পরেই হবে করোনার পরীৰা

স্টাফ রিপোর্টার: খুব দ্র্বত সময়ের মধ্যেই রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) ল্যাবে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীৰা শুর্ব হবে। তবে যে কেউ চাইলেই সেখানে তিনি নিজের নমুনা পরীৰা করাতে পারবেন না। এ জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মতামত নেয়াটা হবে বাধ্যতামূলক।
করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য রামেক হাসপাতালের চিকিৎসা কমিটির আহ্বায়ক ডা. আজিজুল হক আজাদ গতকাল মঙ্গলবার সকালে নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, যে কোন ধরনের ফ্লু এর মতো উপসর্গ থাকলে রোগীকে সন্দেহের তালিকায় রাখা হচ্ছে। তবে কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথা ও জ্বর থাকা অর্থই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নয়। টেস্টের পরই সেটা কনফার্ম করে বলা যাবে। আর টেস্ট করানোর আগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সুপারিশ নেয়া লাগবে। ডা. আজিজুল হক বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্তরা যাতে অন্য কোন রোগীর সংস্পর্শে আসতে না পারেন সেজন্য হাসপাতালের বার্ন ইউনিট (২৯ ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ড) আলাদাভাবে প্রস’ত করা হচ্ছে। সেখানেই আক্রান্তদের রেখে চিকিৎসা দেয়া হবে। ১ এপ্রিল থেকে এটি চালু হবে।
চিকিৎসকেরা ভুল ধারণার বশবর্তী হয়ে কথা বলতে চান না উলেৱখ করে আজিজুল হক আজাদ বলেন, পরীক্ষার পরই কেবল করোনাভাইরাসের আক্রান্ত বলতে চাই। হাসপাতালে পৃথক ল্যাবে করোনা পরীক্ষা চালু করার কাজ দ্র্বত গতিতে এগিয়ে চলছে। তিনি জানান, সোমবার থেকে রাজশাহীর সংক্রমণ ব্যাধি (আইডি) হাসপাতালে আইসোলেশনে রাখা পবার ১৭ বছর বয়সের রোগীর অবস’া অপরিবর্তিত আছে। তাকে পর্যবেৰণ করা হচ্ছে। রামেকের ল্যাব চালু হলে তার নমুনা পরীৰা করা হবে। তিনি আরও জানান, হাসপাতালে আলাদাভাবে ৩৯ ও ৪০ নম্বর ওয়ার্ডে পর্যবেক্ষণে রাখা ছয় জন রোগীর মধ্যে দুই জনের অবসস’ার উন্নতি হওয়ায় তাদেরকে ছুটি দেয়া হয়েছে। বাকি চারজন চিকিৎসাধীন। তাদের জ্বর-সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্ট ছিল। এখন তারা সবাই ভালো আছেন।

শর্টলিংকঃ