যে ৬ উপাদান কফির সঙ্গে মেশালে সর্বনাশ

অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী খুবই জনপ্রিয় পানীয় কফি। প্রতিদিন বিশ্বে প্রায় ২০০ কোটি কাপ কফি পান করা হয়। পানির সাথে ফুটিয়ে রান্না করা “কফি বীজ” নামে পরিচিত এক প্রকার বীজ পুড়িয়ে গুঁড়া মিশিয়ে কফি তৈরি করা হয়। এই বীজ কফি চেরি নামক এক ধরনের ফলের বীজ। কর্মব্যস্ত দিনে গরম কফির কাপে উষ্ণ ছোঁয়াই ভুলিয়ে দিতে পারে সমস্ত ক্লান্তি। এক নিমিষে মনে হতে পারে একেবারেই ঝরঝরে।

কফিতে আছে ক্যাফেইন। বেশি পরিমাণে কফি খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। কিন্তু কফির স্বাদ আরও বেশি করে উপভোগের আশায় কী আপনি এই ছয়টি উপাদান তাতে মেশান। মনে রাখবেন এই ছয়টি মেশালে হতে পারে নানা রকমের রোগ। কফির কাপে এক চুমুকও তখন আপনার জন্য প্রাণঘাতী হয়ে উঠতে পারে।

কফিতে মিষ্টিভাব আনার জন্য কী আপনি আর্টিফিসিয়াল সুইটনার্স ব্যবহার করেন? এমন অভ্যাস থাকলে আপনার পেটের সমস্যা কিংবা টাইপ ২ ডায়াবেটিস রোগে ভোগার সম্ভাবনা এড়ানো মুশকিল।

কোলেস্টেরলের সমস্যা বাড়াতে না চাইলে ভুল করেও আপনার কফির কাপে ফ্লেভার্ড ক্রিম মেশাবেন না। তাতে কিন্তু আপনার সর্বনাশ হতে পারে।

বেশি চিনি মেশানো কফির কাপে চুমুক দেওয়ার অভ্যাস থাকলেও তা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বদল করুন। নইলে ডায়াবেটিস, স্থূলতা এমনকি হৃদযন্ত্রের সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

সেলফ স্টেবল থিকনারের সাহায্যে খুব সহজেই বেশ সুন্দর দেখতে কফির কাপ আপনার সামনে কেউ পরিবেশন করতেই পারেন। কিন্তু জানেন কী এই ধরনের ক্রিমে থাকা সোডিয়াম ফসফেট আপনার স্বাস্থ্যের কতটা ক্ষতি করতে পারে? ডেকে আনতে পারে হৃদযন্ত্রের সমস্যাও। তাই এই ধরনের ক্রিম দেওয়া কফি কাপে চুমুক দেওয়ার আগে দুইবার ভাবুন।

ভ্যানিলা, ক্যারামেলের মতো সিরাপ আপনার কফির স্বাদ যে আরও বাড়িয়ে তুলবে সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু জানেন কী এরকম কফি পানের ফলে অনায়াসে আপনার ওজনের গ্রাফ হতে পারে ঊর্ধ্বমুখী। আর তার থেকে আসতে পারে আরও নানা রোগ। তাই ভুলেও এই ধরনের কফি খেয়ে নিজের বিপদ ডেকে আনবেন না।

কফির কাপে অনেকেরই কনডেন্সড মিল্ক মেশানোর অভ্যাস রয়েছে। কিন্তু জানেন কী কনডেন্সড মিল্কে ২২ গ্রাম চিনি এবং ১৩০ ক্যালোরি রয়েছে। আপনি আপনার চেহারা সম্পর্কে সচেতন হলে কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে কফি খেয়ে নিজের ওজন ভুলেও বাড়াবেন না।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ