মহানন্দায় ভাঙন, হুমকিতে পদ্মার বাঁধ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ব্যুরো: চলতি বর্ষা মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জের দেবীনগর ইউনিয়নের তড়পা ঘাট এলাকায় মহানন্দা নদীতে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে তলিয়ে গেছে প্রায় এক কিলোমিটার এলাকার ফসলি জমিসহ হুমকির মুখে রয়েছে বতসবাড়ি ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাও। এছাড়াও হুমকির মুখে রয়েছে ২’শ ৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা নদীতে নির্মিত আলাতুলি এলাকা রক্ষা প্রকল্পের বাঁধের শেষ অংশ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যে ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে মহানন্দা নদীর ৭ টি পয়েন্ট। পানি উন্নয়ন বোর্ডের শংকা চলতি মৌসুমে ভাঙ্গনের কবলে পড়তে পারে পদ্মা ও মহানন্দা নদী তীরবর্তী অন্তত ৩৩টি পয়েন্ট।

জানা গেছে, শান্ত মহানন্দা যেন সময় সময় ভয়ালরূপ ধারণ করে। একটু একটু করে জমির অংশ যাচ্ছে নদীগর্ভে। গত ২০ দিন ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার দেবীনগর ইউনিয়নের তড়পা ঘাট এলাকায় এক কিলোমিটার এলাকাব্যাপী দেখা দিয়েছে এই ভাঙ্গন। হুমকির মুখে রয়েছে ফসলি জমির পাশাপাশি বসতবাড়ি ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাও। ভাঙ্গন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন নদী পাড়ের বাসিন্দারা। ভাঙ্গন রোধে দ্রুতই পদক্ষেপ নেয়ার দাবি স্থানীয়দের।

দেবিনগর ইউনিয়নের বারোরশিয়া গ্রামের রেজাউল করিম জানান, হাজার হাজার বিঘা ফসলী জমি ও বসতবাড়ি ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে। কার্যকরী পদক্ষেপ না নিলে পথে বসবে ইসলামপুর-দেবীনগরের কয়েক হাজার পরিবার।

দেবীনগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বিশ্বাস জানান, ভাঙ্গন কবলিত এলাকা সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ ও স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তরা পরিদর্শনে এসেছিলেন। স্থায়ীভাবে বাঁধ না দিলে হুমকির মুখে পড়বে কয়েক’শ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা নদীতে নির্মিত আলাতুলি এলাকা রক্ষা প্রকল্পের শেষ অংশও। আর নদী ভাঙ্গনের প্রকোপ সামাল দিতে না পারলে ভেস্তে যেতে পারে সরকারের সকল উন্নয়নও।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ জানান, জরুরী ভিত্তিতে ভাঙনরোধে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল রাজশাহী জোনের প্রধান প্রকৌশলী বরাবর চাহিদাপত্র দেয়া হলে অর্থ বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং কাজ অচিরেই শুরু হবে।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম জানান, অস্থায়ী ভিত্তিতে ভাঙ্গনরোধে অর্থ বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে। তবে, ভাঙ্গনরোধে স্থায়ীভাবে প্রকল্প ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ