ভোমরা দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আসছে আজ

সোনালী ডেস্ক: পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে ভারত সরকার। এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে পেঁয়াজ রপ্তানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞার পর দেশের পেঁয়াজ বাজারে অস্থিরতা দেখা দেয়। সাতক্ষীরার বাজারগুলোতে সর্বোচ্চ ২৮০-৩০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি পেঁয়াজ। তবে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর আজ রোববার থেকে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি করবেন বলে সাতক্ষীরার ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।
এদিকে ভারত পেঁয়াজ রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পরই ৩০ টাকা কেজিতে কমেছে পেঁয়াজের দাম। এতে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন ক্রেতারা। বর্তমানে দেশি পেঁয়াজ সাতক্ষীরার বড় বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকা প্রতিকেজি। গত চারদিন আগেও এই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭০-৭৫ টাকায়। পেঁয়াজের সঙ্গে কমেছে রসুনের দামও। বর্তমানে রসুন বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা প্রতিকেজি। কয়েকদিন আগেও এই রসুন বিক্রি হয়েছে ১১০-১২০ টাকায়।
সাতক্ষীরার বড় বাজারের পাইকারি কাঁচামাল ব্যবসায়ী আজিজ মোল্লা বলেন, বাজারে পেঁয়াজ-রসুনের মূল্য কমেছে। দেশি পেঁয়াজ-রসুন বাজারে রয়েছে। এ ছাড়া ভারত থেকে আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়েছে। যার কারণে মূল্য কমেছে। বর্তমানে কেজিপ্রতি পেঁয়াজের মূল্য (ভারতীয় বীজ) ৪৫-৫০ টাকা। আর দেশি বীজের পেঁয়াজের মূল্য প্রতিকেজি ৫৫-৬০ টাকা। রসুন বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকায় প্রতিকেজি।
পেঁয়াজের দাম কমায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন বড় বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা সাইফুল্লাহ্। তিনি বলেন, কিছুদিন আগেও চড়া মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে। ১৫-২০ টাকার প্রতিকেজি পেঁয়াজ ক্রয় করতে হয়েছে ২০০-২৫০ টাকায়। বর্তমানে ৪৫-৬০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানির পর আরও দাম কমবে।
ব্যবসায়ীদের সংগঠন সাতক্ষীরার ভোমরা সি অ্যান্ড এফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, ইতোমধ্যে পেঁয়াজ রফতানির ওপর ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়েছে। রোববার ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করবেন ব্যবসায়ীরা। ইতোমধ্যে কয়েকজন ব্যবসায়ী পেঁয়াজ আমদানির জন্য এলসি করেছেন।

শর্টলিংকঃ