বেড়েছে মাংসের দাম

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে। কিছুদিন আগেই পেঁয়ােেজর দাম ডাবল সেঞ্চুরি করলেও এখন ৩৫-৪০ টাকা কেজিতে মিলছে পেঁয়াজ। এছাড়া গেল সপ্তাহের মতো এ সপ্তাহেও স্থিতিশীল আছে মাছের দাম। আগের মতো আছে সবজির দামও। তবে এ সপ্তাহে কিছুটা বেড়েছে মাংসের দাম। গতকাল শুক্রবার বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।
বিক্রেতারা জানিয়েছেন, গত সপ্তাহে খাসির মাংসের দাম ছিলো কেজি প্রতি ৭০০ থেকে ৭২০ টাকা পর্যন্ত। কিন্তু এ সপ্তাহে দাম বেড়ে কেজি প্রতি ৭৫০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত হয়েছে। খাসির মাংসের মতো দাম বেড়েছে গরুর মাংসের। গত সপ্তাহে গরুর মাংস কেজি প্রতি দাম ছিলো ৫২০ টাকা। কিন্তু এই সপ্তাহে দাম ৫৪০ থেকে ৫৫০ টাকা। গরু ও খাসির মাংসের মতো দাম বাড়তে দেখা গেছে হাঁস ও মুরগির মাংসের ক্ষেত্রেও।
গত সপ্তাহের তুলনায় ব্রয়লার মুরগির দাম কেজি প্রতি ৫ টাকা করে বেড়েছে। এই সপ্তাহে ব্রয়লারের দাম কেজি প্রতি ১২০ টাকা। লেয়ার ও সোনালি মুরগির দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ১০ টাকা করে। এ সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজি প্রতি ১৬০ টাকা। আর সোনালি মুরগি ১৯০ টাকা কেজিতে কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের।
দাম বেড়েছে দেশি মুরগিরও। গত সপ্তাহে দেশি মুরগির দাম ছিলো কেজি প্রতি ৩৮০ টাকা। কিন্তু এই সপ্তাহে এই দামে পাওয়া যাচ্ছে না। এখন দেশি মুরগির দাম হয়েছে কেজি প্রতি ৪০০ থেকে ৪২০ টাকা পর্যন্ত। দেশি মুরগির মতো দাম বেড়েছে হাঁসের মাংসেরও। গত সপ্তাহে পাতিহাঁস কেজি প্রতি ২৮০ টাকায় কিনতে পেরেছেন ক্রেতারা। কিন্তু এই সপ্তাহে ২০ টাকা বেশি দিয়ে ৩০০ টাকা কেজিতে কিনতে হচ্ছে।
মাংসের দাম কিছুটা বাড়লেও এই সপ্তাহে অনেকটাই স্থিতিশীল আছে মাছ ও সবজির বাজার। গত সপ্তাহের মতো এই সপ্তাহেও ইলিশ মাছ ৭০০ থেকে ৯০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। তেমনি টেংরা, রুই ও মাগুর মাছ গত সপ্তাহের মতো এই সপ্তাহেও ৬০০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। স্থিতিশীল আছে বাটা, পুঁটি, আইড় ও তেলাপিয়া মাছের দাম। আগের মতোই বাটা মাছ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। পুঁটি মাছ আগের মতোই ২০০ টাকা, আইড় ৩০০ টাকা ও তেলাপিয়া মাছ ১২০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে।
দামের কোন পার্থক্য দেখা যায়নি সিলভার কার্প, ব্রিগেড ও শোল মাছের ক্ষেত্রেও। সিলভার কার্প গত সপ্তাহের মতোই এই সপ্তাহেও কেজি প্রতি ২৫০ টাকা, ব্রিগেড ২২০ টাকা, শোল মাছ ৪০০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। মাছের মতোই স্থিতিশীল আছে সবজির বাজার। আগের মতোই আছে সবজির দাম। সবজির দামের ক্ষেত্রেও গত সপ্তাহের সাথে এই সপ্তাহে তেমন কোন পার্থক্য দেখা যায়নি।
বিক্রেতারা জানিয়েছেন, জমি থেকে পেঁয়াজ উঠতে শুরু করায় দাম কমতে শুরু করেছে। এখন নতুন পেঁয়াজ ৩৫-৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন আগের মতোই ২০ থেকে ৩০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। তেমনি আগের মতোই মূলা ৩০ টাকা, কাঁচা পেঁপে ২০ টাকা, ডুমুর ৪০ টাকা, পুঁইশাক ২০ টাকা, কচুশাক ১০ টাকা, লাউ ২০ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, ব্রকলি ৩০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। আগের মতোই গাজর এই সপ্তাহেও ৩০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। তেমনি সবুজ ক্যাপসিকাম ১৪০ থেকে ২০০ টাকা, লাল ক্যাপসিকাম ৪০০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে।
তবে এই সপ্তাহে কিছু কিছু সবজির দাম কিছুটা কমেছে। করলা গত সপ্তাহে ১২০ টাকা কেজি থাকলেও দাম কমে এখন হয়েছে কেজি প্রতি ৭০ টাকা। বাধাকপি প্রতি পিস এখন হয়েছে ১৫ টাকা। কিন্ত গত সপ্তাহে দাম ছিলো পিস প্রতি ২০ টাকা। দাম কমেছে পটল ও ফুলকপিরও। গত সপ্তাহে পটল ছিলো কেজি প্রতি ১০০ টাকা। কিন্তু এখন দাম কমে হয়েছে কেজি প্রতি ৮০ টাকা। কেজি প্রতি ৫ টাকা ফুলকপির দাম হয়েছে ১৫ টাকা। এগুলো ছাড়া অন্য সবজির দাম আগের মতোই আছে।
মাংস বিক্রেতা আনারুল ইসলাম বলেন, মাংসের দাম এই সপ্তাহে কিছুটা বেড়েছে। আমদানি একটু কম তাই দাম কিছুটা বেড়েছে। তবে খুব তাড়াতাড়ি দাম কমে যাবে। বাজার করতে এসেছিলেন ক্রেতা আলিমুল হক চৌধুরী। তিনি বলেন, দাম মোটামুটি স্থিতিশীল আছে। এটা মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত মানুষদের জন্য খুব বেশি নয়। কিন্তু নি¤œবিত্ত মানুষদের জন্য যথেষ্ট বেশি দাম। দাম আরও কমলে সবার ভালো হয়।

শর্টলিংকঃ