বিদেশ থেকে ফেরা নিয়ে কঠোর হচ্ছে সরকার: কাদের

সোনালী ডেস্ক: করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে প্রবাসীদের ফেরার বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘করোনা আক্রান্ত দেশগুলো থেকে দেশে না ফেরার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। এসব দেশ থেকে বিমানযোগে যাত্রী অবতরণ বন্ধে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।’
গতকাল রোববার দুপুরে ধানমন্ডির দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনা নিয়ে জনগণের মধ্যে উৎকণ্ঠা আছে, দুশ্চিন্তা আছে। বাংলাদেশ জনবহুল দেশ হওয়ায় করোনার মতো ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে তার প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে, আপনারা বুঝতে পারছেন। ইউরোপ, ইরানের মতো দেশ আক্রান্ত হয়েছে করোনায়। এ ভাইরাসে বিশ্বের ১৪৯টি দেশ আক্রান্ত হয়েছে। এখন বিভিন্ন দেশে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেড়েছে। কেবলমাত্র চীন কন্ট্রোল করছে। তারা কীভাবে কন্ট্রোল করতে পেরেছে, সে বিষয়টি শেয়ার করার জন্য আমাদের কাছেও তাদের একটি চিঠি এসেছে। তারা প্রয়োজনে সহযোগিতা করার জন্য প্রস্তুত আছে। সাহায্য ও সহমর্মিতার হাত প্রসারিত করার আভাস দিয়েছে তারা।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে আমরা এখন পর্যন্ত প্রস্তুত। প্রথম থেকে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সব শাখাকে প্রস্তুত করেছেন। আমাদের সরকার যেমন প্রস্তুত আমাদের দলও প্রস্তুত রয়েছে। দেশবাসীকে আমরা সতর্কতার অভিযানে যুক্ত করেছি। আমরা সতর্কতামূলক লিফলেট বিতরণ করছি।’ স্কুল-কলেজ বন্ধের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘স্কুল-কলেজ বন্ধের বিষয়ে দাবি উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে উচ্চ পর্যায়ে আলোচনারও ব্যাপার আছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি।’ সময়মতো পদক্ষেপ নেওা হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘এক্সপ্রেস ওয়ের উদ্বোধন হয়েছে। পদ্মা সেতুর কিছু চাইনিজ কর্মী, ইঞ্জিনিয়ার ছুটিতে আছেন। কিন্তু তাদের সংখ্যা বেশি নয়। সেখানে এক হাজারেরও অধিক চাইনিজ টেকনিশিয়ান আছেন। এর মধ্যে কিছু লোক ছুটিতে গেছে আবার কিছুকিছু চলে এসেছে। তাদের আসা প্রলম্বিত হলেও তাদের অনুপস্থিতিতে ইতোমধ্যে আমরা চারটি স্পান বসিয়েছি। পদ্মা সেতু ও কর্ণফুলী ট্যানেলের কাজ দ্রæত এগিয়ে চলছে ‘কাদের বলেন, ‘আমরা সর্বশেষ ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত সময় দিয়েছি।’ করোনা ভাইরাসের কারণে আওয়ামী লীগের মহানগর কমিটির কাজ বিলম্বিত হতে পারে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন প্রক্রিয়া ও ঘরোয়া কাজগুলো আরো গতি পাবে। ঘরোয়া কাজগুলো করার জন্য অনুক‚ল পরিবেশ সৃষ্টি হবে। বিলম্ব হবে না।’

শর্টলিংকঃ