ফেডারেশন কাপে চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা

  • 3
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল অস্কার বেচেরার গোলে ফেডারেশন কাপ ফুটবলের শিরোপা ধরে রেখেছে বসুন্ধরা কিংস। রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের ফাইনালে বসুন্ধরা কিংস ১-০ গোলে হারিয়েছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বন্ধ থাকা ফুটবল শুরুর পর হওয়া প্রথম প্রতিযোগিতার শিরোপা স্বাদ নিল অস্কার ব্রুসনের দল।

ফাইনালকে কেন্দ্র করে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম ছিল বেশ সরগরম। দুই পাশের দুই গ্যালারি দখলে নেয় বসুন্ধরা-সাইফের সমর্থকরা। শুরু থেকেই দুই দল মেতে উঠে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে। মাঠের ফুটবলের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে গ্যালারিতেও।

চতুর্থ মিনিটে কিংসের তপু বর্মন জাল খুঁজে পেলেও অফসাইডের কারণে গোল হয়নি। ১৬ মিনিটে সতীর্থের লং বল ধরে ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা বিশ্বনাথ ঘোষের শট ফিস্ট করে ফেরান সাইফ স্পোর্টিংয়ের গোলরক্ষক পাপ্পু হোসেন। একটু পর ডি-বক্সের ভেতর থেকে কিংসের বেসেরার শট বেরিয়ে যায় দূরের পোস্ট দিয়ে। ২০ মিনিটের সময় গোলরক্ষক জিকোর দারূণ দক্ষতায় গোল খাওয়া থেকে রক্ষা পায় বসুন্ধরা।

৩২ মিনিটেও সুযোগ এসেছিল বসুন্ধরার। ডান দিকে থ্রো করে খালেদ। এরপর সাইফের রক্ষণভাগ বল ভালোভাবে ক্লিয়ার করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত ডি বক্সের সামনে আবার বল পেয়ে শট নেন জোনাথন। তবে বল চলে যায় গোলপোস্টের পাশ দিয়ে। বিরতির যোগ করা সময়ে বসুন্ধরার ডি বক্সের বাম পাশে হ্যান্ডবল হলে ফ্রি কিকের বাঁশি বাজান রেফারি। যোগ করা সময়ে রহমত মিয়ার দারুন শট রুখে দেন জিকো।

প্রথমার্ধে কোন দলই গোলের দেখা পায়নি। বিরতির পর ৫২ মিনিটের সময় এগিয়ে যায় বসুন্ধরা। মাঝ মাঠ থেকে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রবসন ডি সিলভার পাস সরাসরি যায় সাইফের ডি বক্সে থাকা আর্জেন্টাইন বেসেরার পায়ে। এবার আর ভুল করেনি বসুন্ধরা, মাঠ গড়ানো শটে গোলরক্ষক পাপ্পুকে ফাঁকি দিয়ে বল জড়ায় সাইফের জালে।

যদিও এর কিছুক্ষণ পর সুযোগ পায় সাইফ। সাজ্জাদ হোসাইন একাই বল নিয়ে এগিয়ে যান বসুন্ধরার ডি বক্সের দিকে। ৬৯ মিনিটে বসুন্ধরাকে রক্ষা করেন জিকো। বারবার চেষ্টা করেও আর গোলের দেখা পায়নি সাইফ। ফুটবলের রাজত্ব পুনরায় দখল করে বসুন্ধরা।

ঘরোয়া ফুটবলের শীর্ষ লিগে ওঠার পর এটি বসুন্ধরা কিংসের চতুর্থ ট্রফি জয়। অভিষেক আসরে দলটি জিতেছিল প্রিমিয়ার লিগ ও স্বাধীনতা কাপ। গত মৌসুমে জিতেছিল ফেডারেশন কাপ। ট্রফি ধরে রাখার মাধ্যমে আরেকটি মৌসুম শুরু হলো কিংসের।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ