নিয়ামতপুরে নকল বালাইনাশক বিক্রি, ব্যবসায়ীকে ছয় মাসের কারাদণ্ড

নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নিয়ামতপুরে নকল বালাইনাশক দিয়ে কৃষকের সাথে প্রতারণা অব্যাহত রয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় কৃষকের কাছে নকল বালাইনাশক বিক্রির দায়ে আরও এক ভ্রাম্যমাণ বালাইনাশক ব্যবসায়ীকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এসময় তার সাথে থাকা ২৫ প্যাকেট বায়ার কোম্পানির নকল নাটিভো বালাইনাশক জব্দ করা হয়। আটককৃত ব্যক্তি জাহিদুল হক (২৫) জেনারেল এগ্রোকেমিক্যাল লিমিটেডের একজন কর্মী ও নওগাঁর পোরশা উপজেলার বাসিন্দা।

বায়ার ভিয়েতনাম লিমিটেডের তৈরি নাটিভো ৭৫ ডাব্লিউজি বালাইনাশকটির আদলে তৈরি নকল বালাইনাশক বিক্রির সময় সন্দেহ হয় কৃষকদের। কৃষকরা ওই ব্যক্তিতে আটকিয়ে রেখে সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি অবহিত করেন সংশ্লিষ্টদের।

এরপরই ছুটে আসেন ভ্রাম্যমাণ আদালত টিম। ভ্রাম্যমাণ আদালতে আটক ব্যক্তি জাহিদুলের স্বীকারোক্তিতে এটি নকল প্রমাণ হলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ইউএনও জয়া মারীয়া পেরেরা তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন।

জানা যায়, নাটিভো ৭৫ ডব্লিউ জি এর প্রস্তুতকারক বায়ার ভিয়েতনাম লিমিটেড। আর পরিবেশক বায়ার ক্রপসায়েন্স লিমিটেড বাংলাদেশ। এ বালাইনাশকটি মূলত ধানের ব্লাস্ট রোগ দমনে কার্যকারী বালাইনাশক হিসেবে পরিচিত। কোম্পানির পক্ষে মোবাইল কোর্টে প্রসিকিউশন দাখিল করেন বায়ার ক্রপসায়েন্স লিমিটেডের এফএ জাহিদ হাসান।

উল্লেখ্য, মিমপেক্স এগ্রোকেমিক্যালস লিমিটেডের তৈরী কোটান ৫০ ডব্লিউজি বালাইনাশকটির আদলে তৈরী নকল বালাইনাশক বিক্রির সময় নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার জয়পুর সরদারপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মোজাম্মেল মোল্লার ছেলে আরিফুল ইসলামকে (২৫) ছয় মাসের কারাদণ্ড প্রদান করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ