ধামইরহাটে বাল্যবিয়ে দেয়ায় পিতার কারাদÐ

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি: ধামইরহাটে মেয়েকে জোর করে বাল্যবিয়ে দেওয়ার অপরাধে পিতার ৬ মাসের কারাদÐ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বীরগ্রামের জনৈক ব্যক্তি বীরগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে (১৩) বিয়ে দেবার আয়োজন করে। বাবা তাকে লেখা পড়া না করিয়ে জোর করে বিয়ে দিচ্ছে এমন অভিযোগ প্রধানশিক্ষক খুরশিদা আকতার খুশিকে জানিয়ে ভিকটিম বলেন, ম্যাডাম আমাকে বাঁচান। নিরূপায় হয়ে প্রধান শিক্ষক ইউএনও, উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করেন। খবর নিতে মেয়ের মাকে উপজেলা প্রশাসন থেকে ফোন করা হলে মেয়ের বিয়ে দিবে না মর্মে মৌখিকভাবে অঙ্গীকার করেন। এ অবস্থায় গত ২১ ফেব্রæয়ারি স্থান পরিবর্তন করে ধামইরহাট ইউনিয়নের কাজী ও রুপনারায়নপুর-কোকিল সম্মিলিত আলিম মাদরাসার প্রভাষক ফজলুর রহমান জেনে শুনে বাল্যবিয়ে রেজিস্ট্রি সম্পাদন করেন।
খবরটি প্রকাশ হলে ২৫ ফেব্রæয়ারি রাত ৮টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায়, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মিজানুর রহমান থানা পুলিশকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে হিয়ে ভিকটিমের স্বীকারোক্তি ও বাল্যবিয়ের ঘটনায় ভিকটিমের বাবাকে (৫২) মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদÐাদেশ প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায়। এছাড়া কাজি পলাতক রয়েছেন।

শর্টলিংকঃ