দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাসে আরও সতর্ক হতে হবে

  • 1
    Share

প্রতি বছর জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকিতে থাকা দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম থাকেই। জার্মানওয়াচ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো নিয়ে সর্বশেষ প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ছিল সপ্তম অবস্থানে। এবার জাতিসংঘের দুর্যোগ প্রশমন কার্যালয় (ইউএনডিআরআর) যে প্রতিবেদন তৈরি করেছে তাতে দেখা যায়, ২০০০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ২০ বছরে সারা বিশ্বের দুর্যোগকবলিত শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ নবম। গত দুই দশকে সবচেয়ে বেশি দুর্যোগে পড়েছে চীন। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। ‘দ্য হিউম্যান কষ্ট অব ডিজাস্টার ২০০০-২০১৯’ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ইউএনডিআরআরের তথ্যে বলা হয়েছে, গত দুই দশকে যত প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছে, সেসবের জন্য প্রধানত দায়ী জলবায়ু পরিবর্তন। ১৯৮০ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত সারা বিশ্বের প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং ২০০০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সারা বিশ্বের প্রাকৃতিক দুর্যোগের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করেছে ইউএনডিআরআর। বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, ভূমিকম্প, উচ্চ তাপমাত্রা, পাহাড়ধস, খরা ও দাবানলকে দুর্যোগ হিসেবে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনে দেখা যায়, ১৯৮০ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত যত দুর্যোগ হয়েছে, পরের ২০ বছরে এর প্রায় দ্বিগুণ দুর্যোগ হয়েছে।

১৯৮০ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত সারা বিশ্বে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছিল চার হাজার ২১২টি। পরের ২০ বছরে সংখ্যাটি বেড়ে সাত হাজার ৩৪৮-এ দাঁড়িয়েছে। গত দুই দশকে সারা বিশ্বে প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রাণহানি হয়েছে ১২ লাখ মানুষের। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪০০ কোটি মানুষ। দুর্যোগের কারণে অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে ২.৯৭ ট্রিলিয়ন ডলার।

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে দুর্যোগ বৃদ্ধি পাবার কথা সবারই জানা। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবে সারাবিশ্বেই গত দুই দশকে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সংখ্যা বেড়েছে। দুর্যোগের তীব্রতাও বেড়েছে। কোনো দেশে বেশি হচ্ছে, কোনো দেশে কম হচ্ছে; তবে হচ্ছে। দুর্যোগের হারও বাড়ছে। জলবায়ু পরিবর্তন বাড়ার মূল কারণ বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি। গত ২০ বছরে বিশ্বে জনসংখ্যার হারও বেড়েছে। বাড়তি বসতভিটার জন্য বন উজাড় করছে, কৃষিজমি উজাড় করছে মানুষ। এসব কর্মকাণ্ড উষ্ণতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে খাদ্য উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে। অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মানুষের প্রাণহানিও হচ্ছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিশ্বের উদ্যোগ সম্পূর্ণ ব্যর্থ। বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও এ কথা প্রযোজ্য। তবে সার্বিকভাবে প্রতিবেদনে বাংলাদেশের প্রশংসা করা হয়েছে। বাংলাদেশ গত দুই দশকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বেশ কিছু কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সক্ষম হয়েছে। ফলে প্রাণহানি কম হয়েছে। নিজেদের প্রাকৃতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ