দুই মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন

অনলাইন ডেস্ক: রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান আলোচিত প্রতারক সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় সাতক্ষীরার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে চার্জ গঠন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে সাহেদকে জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমানে আদালতে হাজির করা হয়। আদালত শুনানি শেষে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন।

পৃথক দুটি মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে এ চার্জ গঠন করা হয়। সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলা দুটির নং এসটিসি ২০৭/২০ (অস্ত্র) ও এসটিসি ২০৮/২০ (চোরাচালান)। মামলা দুটির বাদী র‍্যাব-৬ খুলনার পুলিশ পরিদর্শক মো. নজরুল ইসলাম।

আদালতে সাহেদের আইনজীবী অ্যাড. আবু বক্কর সিদ্দিকী জানান, আদালতে সাহেদ করিমকে হাজির করা হলে শুনানি শেষে বিচারক শেখ মফিজুর রহমান ২৩ ফেব্রুয়ারি পৃথক দুটি মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেছেন।

উল্লেখ্য, ২০২০ বছরের ১৫ জুলাই ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার শাখরা কোমরপুর এলাকা দিয়ে ভারতে পালানোর চেষ্টাকালে সাহেদকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব সদস্যরা। এ সময় তার কাছ থেকে একটি অবৈধ পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, ২৩৩০ ভারতীয় রুপি, ৩টি ব্যাংকের এটিএম কার্ড ও মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

এ ঘটনায় র‌্যাবের ডিএডি নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ওইদিনই অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে দেবহাটা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় আসামি করা হয় সাহেদ ও জনৈক বাচ্চু মাঝি নামের অপর আসামিকে।

মামলার প্রথম তদন্তকারী নিযুক্ত হন দেবহাটা থানার ওসি উজ্জল কুমার মৈত্র। দুইদিন পর র‌্যাবের এসআই রেজাউল করিম তদন্তকারি কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়ে ১০ দিনের রিমান্ড নেন সাহেদকে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ২৪ আগস্ট বাচ্চু মাঝির হদিস না পেয়ে শুধুমাত্র সাহেদকে অভিযুক্ত করে অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। সেই মামলায় চার্জ গঠন করে সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্ষ করা হয়েছে।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ