দুই বছর মাসে লাখ টাকা পাবেন বিশ্বকাপজয়ীরা

সোনালী ডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বিশ্বকাপ জিতে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। গতকাল বুধবার বিকেলে ঢাকায় পৌঁছালে বিমানবন্দরে তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ও মিষ্টি মুখ করান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।
সেখান থেকে বিশেষ বাসে করে খেলোয়াড়দের নিয়ে আসা হয় মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। বিকেল থেকেই সেখানে তাদের জন্য অপেক্ষা করছিল ক্রিকেটপ্রেমীরা। মিরপুর স্টেডিয়াম এলাকা জনারণ্যে পরিণত হয়। জনস্রোত ঠেলে খেলোয়াড়দের বাস ভেতরে ঢোকানো বেশ কঠিন হয়ে যায়। তাদের জন্য যে লাল গালিচার সংবর্ধনার ব্যবস্থা করা হয়েছিল জনস্রোতের কারণে সেটা সম্ভব হয়নি।
ভিন্ন পথে তাদের স্টেডিয়ামে ঢোকানো হয়। বাস থেকে নামার সময় তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। সংবর্ধনার আগে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেন আকবর আলী ও তানজিম হাসান সাকিবরা। এরপর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে মূল মাঠে তাদের আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা দেওয়া হয়। লাল গালিচা মাড়িয়ে খেলোয়াড়রা প্রবেশ করেন মাঠে। এ সময় গ্যালারিতে উপস্থিত ছিলেন হাজার হাজার ক্রিকেটপ্রেমী ও দর্শক। তাদের করতালি আর হর্ষধ্বনির মধ্য দিয়ে কেট কেটে সংবর্ধনা শুরু হয়। মাঠে কেট কাটা ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা শেষে ট্রফি নিয়ে মাঠ প্রদক্ষিণ করেন আকবার আলী ও তার সতীর্থরা।
এরপর আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ও বিশ্বকাপজয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলী। নাজমুল হাসান পাপন বলেন, এই দলের ক্রিকেটাররা সামনে যাতে ভালো করতে পারে সেজন্য আমরা পরিকল্পনা করেছি। এই দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে অনূর্ধ্ব-২১ দল গঠন করা হবে। তাদের আগামী দুই বছর ট্রেনিং করানো হবে। আর এই দুই বছর প্রতি ক্রিকেটার এক লাখ টাকা করে পাবেন।
বিসিবি সভাপতি আরও বলেন, বিশ্বকাপ জেতা অনেক কঠিন। এই সফলতা ধরে রাখাটা, এখান থেকে উন্নতি করা তার চেয়ে বেশি কঠিন। সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। আমরা ঠিক করেছি অনূর্ধ্ব-২১ দল গঠন করব। এই দলকে আরো দুই বছর বিশেষ ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করব। দুই বছরে প্রতি মাসে এক লক্ষ টাকা করে পাবে ওরা। উন্নতি করতে যতরকম সুবিধা দেয়া দরকার তাদের দেয়া হবে। ওদের জন্য ফান্ড আনলিমিটেড। ওদের জাতীয় দলে ঢোকার পথ যাতে সহজ হয় সেজন্য আমরা যা যা করা দরকার করব। ওদের জন্য বাইরের দেশগগুলোতে খেলার ব্যবস্থা করব। তিনি আরো বলেন, আগামী সপ্তাহে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ওদের গণসংবর্ধনা দেয়া হবে। সেখানে প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন। আপাতত ক্রিকেটাররা সবাই বাড়ি যাবে। সেখানে পরিবারের সাথে তারা সময় কাটাবে। এরপর ঢাকায় আসলে গণসংবর্ধনা দেয়া হবে। নাজমুল হাসান পাপন বলেন, আমাদের জাতীয় দল ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে সিরিজ জিতেছে। টেস্টে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছে। আমাদের মেয়েরা এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। তবে, এরা যেটা করেছে তার সাথে অন্য কিছুর তুলনা চলে না। বাংলাদেশের ইতিহাসে সেরা অর্জন এটি। তিনি বলেন, বিশ্বকাপ জেতা আমাদের স্বপ্ন ছিল। আমরা যখন অস্ট্রেলিয়াকে টেস্টে হারিয়েছিলাম তখন প্রধানমন্ত্রী খুব খুশি হয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, পাপন কাপটা দেখতে চাই, বিশ্বকাপ দেখতে চাই।
বিসিবি সভাপতি বলেছেন, এটা হঠাৎ করে পাওয়া না। ছেলেরা ইংল্যান্ড ট্যুরে ইংল্যান্ডের সাথে জিতেছিল, ভারতকে হারিয়েছিল। নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে ৪-১ সিরিজ জিতেছিল। শ্রীলঙ্কার সাথে ভালো খেলেছে। আমরা গত দুই বছর ধরে এই দল নিয়ে কাজ করেছি। বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটারদের উদ্দেশ্যে বিসিবি সভাপতি বলেন, তোমরা বিশ্বকাপ জিতেছ। এখন তোমাদের সবাই চেনে। অনেকেই তোমাদের অনুসরণ করবে। তোমরা এমন কিছু করো না যাতে করে ভুল ম্যাসেজ যায়। সবার চোখ থাকা মানে বিসিবির চোখও থাকবে তোমাদের উপর। বিসিবি বস বলেন, ওরা এখন বড় কোনো খেলোয়াড় হয়ে যায়নি। তিন-চার বছর আগেও মনে হয়নি যে, বাংলাদেশ বিশ্বকাপ জিতবে। যুবারা যদি বিশ্বকাপ জিততে পারে তাহলে বড়রাও না পারার কারণ নেই। হয়তো সময় লাগবে।
গত রোববার দক্ষিণ আফ্রিকার পোচেফস্ট্রæমে আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে চারবারের বিশ্বকাপজয়ী ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের শিরোপা জেতে বাংলাদেশ।

শর্টলিংকঃ