দিল্লিতে কৃষক বিক্ষোভে সহিংসতায় নিহত ১

অনলাইন ডেস্ক: তিন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠা ভারতের হাজার হাজার কৃষক পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে রাজধানী দিল্লির ঐতিহাসিক লাল কেল্লায় পৌঁছে বিক্ষোভ করছেন। রাজধানী ছাড়াও দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়া এই বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছেন কৃষকরা। দিল্লিতে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত এক কৃষক নিহত ও পুলিশের এক সদস্য আহত হয়েছেন।

দেশটির ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসে শর্ত সাপেক্ষে বিক্ষোভের অনুমতি পেলেও মঙ্গলবার সকালে তা উপেক্ষা করে দিল্লির প্রাণকেন্দ্রের লাল কেল্লায় পৌঁছান হাজারও কৃষক। পায়ে হেঁটে এবং ট্র্যাক্টর নিয়ে বেলা ১২টার দিকে নির্ধারিত সড়ক ব্যবহার না করে দিল্লির বিভিন্ন দিক থেকে কৃষকরা সেখানে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ লাঠি চার্জ ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে।

এ সময় বিক্ষোভকারী কৃষকরা উপস্থিত পুলিশ সদস্যদের ওপর ট্র্যাক্টর চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন। এতে পুলিশের এক সদস্য গুরুতর আহত হন। তবে যে কৃষক দিল্লি বিক্ষোভের সময় মারা গেছেন; পুলিশ তার ব্যাপারে বলেছে, ট্র্যাক্টর উল্টে প্রাণ গেছে ওই কৃষকের। কিন্তু বিক্ষোভরত কৃষকরা বলছেন, পুলিশের গুলিতেই মারা গেছেন ওই কৃষক।

ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার বলছে, কৃষি আইনের সংস্কারে কৃষি খাত স্বতন্ত্র হিসেবে দাঁড়াবে এবং এতে কৃষকদেরই উপকার হবে। কিন্তু কৃষকরা বলছেন, এই আইন তাদের উপার্জন কমিয়ে দেবে।

মঙ্গলবার নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে কৃষকদের সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ার পর দিল্লির সীমান্ত এলাকা সিঙ্ঘু, ঘাজিপুর, তিকরি, মুকারবা চক এবং ন্যাংলই এলাকায় দুপুর ১২টা থেকে রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত মোবাইল নেটওয়ার্ক স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

দেশটির ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, দিল্লি পুলিশ রাজধানীর সিঙ্ঘু, তিকরি এবং ঘাজিপুর সীমান্ত ব্যবহার করে কৃষকদের বিক্ষোভের অনুমতি দিয়েছিল। একই সঙ্গে দিল্লির কেন্দ্রস্থলের ‘রাজপথে’ প্রজাতন্ত্র দিবসের বার্ষিক প্যারেড শেষ হওয়ার পর কৃষকরা বিক্ষোভ করতে পারবেন বলে জানিয়েছিল পুলিশ।

কিন্তু মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকেই ওই তিন সীমান্ত ছাড়াও দিল্লির অন্যান্য পথ ধরে হাজার হাজার কৃষক পায়ে হেঁটে, ট্র্যাক্টরে করে ঐতিহাসিক লাল কেল্লায় জমায়েত হতে শুরু করেন। এতে বাধা দিলে পুলিশের ওপর ট্র্যাক্টর চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন কৃষকরা। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে।

অন্যদিকে, বিক্ষোভে অংশ নেয়া দেশটির জ্যেষ্ঠ কৃষক বলবীর সিং রাজেওয়াল বলেন, কৃষকরা তাদের নির্ধারিত পথেই এগোচ্ছিলেন। সংকট কিষাণ মোর্চার একজন সদস্যও নির্ধারিত পথের বাইরে যাননি। আমরা কৃষকদের ওপর চালানো সহিংসতার নিন্দা এবং সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।

গত বছরের নভেম্বর থেকে দেশটির লাখ লাখ কৃষক দিল্লির অদূরে ও দেশটির বিভিন্ন রাজ্যে নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন। গত সপ্তাহে দেশটির সরকার এই আইন স্থগিতের ঘোষণা দিলেও তাতে থামছেন না কৃষকরা।

সূত্র: বিবিসি, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এনডিটিভি।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ