ডিসেম্বরেই টিকা দেয়ার প্রস্তুতি ব্রিটেন-যুক্তরাষ্ট্র-জার্মানির

অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও জার্মানি। মার্কিন ওষুধ তৈরির প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও তার সহযোগী জার্মানি সংস্থা বায়োএনটেক করোনার টিকার জরুরি অনুমোদনের আবেদন করার একদিন পরই টিকা দেয়ার জন্য তিন দেশের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে দ্য টেলিগ্রাফ।

টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে গার্ডিয়ান জানিয়েছে, ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার দ্রুত অনুমোদন দিতে পারে ব্রিটেন। এরই মধ্যে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ টিকার মূল্যায়ণ বিশ্লেষণ করতে শুরু করেছেন। অনুমোদন মিলতে পারে এই সপ্তাহেই। টিকা প্রদানের জন্য পহেলা ডিসেম্বরের মধ্যে দেশটির ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসকে (এনএইচএস) প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে।

অবশ্য যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে প্রথম টিকা দেওয়ার নির্দিষ্ট দিনক্ষণ নিয়ে গতকাল পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করা হয়নি। স্বাস্থ্য বিভাগের একজন মুখপাত্র বলেছেন, যুক্তরাজ্যের টিকা দেখভালের দায়িত্বে থাকা মেডিসিনস অ্যান্ড হেলথকেয়ার প্রোডাক্টস রেগুলেটরি এজেন্সি (এমএইচআরএ) ফাইজারের টিকার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে স্বাধীন। তাদের টিকার চূড়ান্ত তথ্য মূল্যায়নে যত দিন সময় লাগবে, তা নিতে পারে। কোভিড-১৯ টিকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যসেবা খাতে প্রচুর পরিকল্পনা প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে।

গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্য সরকার এমএইচআরএকে ফাইজারের টিকাটি পরীক্ষার জন্য বলে। ইতিমধ্যে দেশটি চার কোটি ডোজ টিকার অর্ডার দিয়েছে। তবে এ বছরে এক কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার আশা করছে, যা দেশটির ৫০ লাখ মানুষের সুরক্ষায় যথেষ্ট বলে মনে করা হচ্ছে।

অপরদিকে ফাইজারের আবেদনের পর যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) জানিয়েছে, তাদের টিকা কমিটি এই আবেদন নিয়ে আলোচনার জন্যে ১০ ডিসেম্বর বৈঠকে বসবে।

এফডিএ প্রধান স্টিফেন হান এক বিবৃতিতে বলেছেন, কোভিড-১৯ টিকার প্রতি জনগণকে আস্থাশীল করতে স্বচ্ছ্বতা ও আলোচনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তবে তাদের পর্যালোচনায় কতো সময় লাগবে তা তিনি উল্লেখ করেননি। কিন্তু এর আগে ফেডারেল সরকার থেকে বলা হয়েছে, ডিসেম্বরেই জনগণ টিকা পাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের টিকাদান কর্মসূচির প্রধান মনসেফ স্লাউয়ি টিকা দেওয়ার সুনির্দিষ্ট তারিখের কথা উল্লেখ করে সিএনএনকে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকেরা প্রথম ১১ ডিসেম্বর টিকা পেতে পারেন। অনুমোদন পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই টিকা কেন্দ্রে পৌঁছান হবে। ফলে অনুমোদনের দুই দিনের মধ্যেই টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে।

এদিকে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ জানিয়েছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে প্রথম টিকাদান কর্মসূচির পরিকল্পনা নিয়েছে স্পেন ও জার্মানি। জানুয়ারি মাস থেকে ব্যাপক টিকাদান কর্মসূচি পরিচালনা করবে তাঁর দেশ। তিন মাসের মধ্যে দেশটির মোট জনসংখ্যার উল্লেখযোগ্য অংশের জন্য টিকা নিশ্চিত করা হবে। স্পেনে আগামী জানুয়ারি মাসে টিকা দেওয়ার জন্য ১৩ হাজার টিকাদান কেন্দ্র প্রস্তুত আছে।

জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেন্স স্প্যান জানিয়েছেন, এই বছর ইউরোপে একটি টিকার অনুমোদন হবে বলে আশাবাদী হওয়ার কারণ রয়েছে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে টিকাদানের জন্য কেন্দ্র প্রস্তুত করছে সরকার।

যে টিকার অর্ডার দেয়া হয়েছে তা তাদের প্রয়োজন মিটিয়ে অন্যদেরও সহযোগীতা করা যাবে বলেও জানিয়েছেন স্প্যান।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ