ট্রেনে জন্ম নেয়া মিতালী বাড়ি গেলো ট্রেনেই

  • 18
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: দিনাজপুরের চলন্ত আন্তঃনগর ট্রেন মিতালীতে জম্ম নেয়া নবজাতক শিশু ও তার মাকে বিশেষ একটি গ্যাংকার ট্রেনযোগে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন রেলওয়ে বিভাগ।

বুধবার দুপুর ২টার দিকে দিনাজপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে একটি গ্যাংকার ট্রেনে শিশু মিতালি ও তার পরিবারকে বাড়িতে পাঠানো হয়।

এ সময় বাংলাদেশ রেলওয়ে লালমনিরহাট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক শাহ সুফী নুর মোহাম্মদ ও দিনাজপুর রেল স্টেশনের সুপার জিয়াউলর রহমানসহ রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শিশু মিতালীর মা মুক্তি পারভীন বলেন, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ আমাদের জন্য এতো বড় উপকার করলো, আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবো। আমার বিপদের সময় তারা অনেক করেছে। আমার মেয়ের নাম তারা মিতালী রেখেছে। এতে আমি অনেক খুশি।

দিনাজপুর স্টেশন সুপার এবিএম জিয়াউর রহমান জানান, গত রোববার ট্রেনটি দিনাজপুরে আসার পর ঘটনাটি জেনে আমি ট্রেনটি আটকে রাখি। ট্রেনটি নির্ধারিত সময়ের ১৭ মিনিট পর ছেড়ে যায়। আমরা সকল প্রকার সহযোগীতা দিয়ে প্রসূতি মা মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে নিরাপদে ট্রেন থেকে নামিয়ে বিনা ভাড়ায় অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছি। পরবর্তীতে বিষয়টি রেলওয়ে লালমনিরহাট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক শাহ সুফী নুর মোহাম্মদকে জানাই। পরে তিনি আমাকে শিশু সন্তানটির নাম মিতালী রাখার জন্য বলেন।

তিনি আরও জানান, রোববার দুপুরে রেলওয়ের একটি গ্যাংকার ট্রেনে শিশু মিতালি ও তার পরিবারের অন্যানদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেই। গ্যাংকারটি রেললাইন রক্ষণাবেক্ষণ কাজে নিয়োজিত ছিলো।

উল্লেখ্য, গত রোববার সকাল পৌনে ১০টার দিকে পঞ্চগড় থেকে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের শোভন ‘ঙ’ বগিতে এই ঘটনা ঘটে। প্রসূতি মা মুক্তি পারভীন ও তার নবজাতক শিশুটিকে দিনাজপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিলো। তখন থেকেই মা ও নবজাতক শিশু মিতালী চিকিৎসাধীন ছিলেন। প্রসূতি মা মুক্তি পারভীন ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার ভুমরাদহ হাজী পাড়া গ্রামের মনসুর আলীর স্ত্রী। সেই সময় চিকিৎসার জন্য মা মুক্তি পারভীন ও তার স্বামী মনসুর আলী দিনাজপুরে আসছিলেন।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ