ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে মানুষের চলাচল

তৈয়বুর রহমান: রাজশাহী নগরীর সড়ক আর ফুটপাতগুলো এখন এক শ্রেণির ব্যবসায়ী ও যানবাহনের দখলে। ফলে মানুষের চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে সড়ক ও ফুটপাতগুলো। মানুষের নিরাপদ চলাচলের জন্য তৈরি হয়েছে ফুটপাত। আর যানজটমুক্ত রাখার জন্য সড়কগুলোকে প্রশস্তকরণ করা হচ্ছে। কিন্তু জনসচেতনতার অভাবে কিছুতেই তা জনজট ও যানজটমুক্ত রাখা যাচ্ছে না।
এদিকে সড়ক আর ফুটপাতের ওপর বসেছে বাজার। তার ওপর চলছে কেনাকাটা। ফলে চরম বিপাকে পড়েছে পথচারীরা। ফুটপাতে হাঁটতে গিয়ে অধিকাংশ পথচারীকে সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে অহরহ। আর যানজটের কারণে পথচারীদের সড়ক পার হওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। একটু দুর্বল মানুষ হলেই তাকে পড়তে হয় অটো নয়তো রিকশার নিচে।
নগরজুড়েই সড়কের ওপর চলছে ব্যবসা-বাণিজ্য। ফলমূল, জুতা-স্যান্ডেল, গেঞ্জি-লুঙ্গি, ভাজা-পোড়া, আলু-পটল, মাছ-মাংস, ঝিঙা এসব কেনাবেচা চলছে ফুটপাত আর সড়কের ওপর। এর সাথে রয়েছে সড়কের ওপর গার্ড়ি পার্কিং। জিরো পয়েন্ট হতে মনিচত্বর আর জিরো পয়েন্ট হতে গণকপাড়া যেন অটো আর রিকশায় ঠাসা। নিচে পা বাড়ালেই গাড়ির ধাক্কা। সব মিলিয়ে শহরের অধিকাংশ সড়ক আর ফুটপাত এখন ব্যবসায়ীদের দখলে চলে গেছে।
রাসিকের ফুটপাতমুক্ত অভিযান মাঝে মাঝে চলছে ঠিকই, কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। অভিযান যখন চলছে তখনই। যেমন অভিযান শেষ তেমনি আবার সেখানে বসছে দোকান। নগরীর মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারের জন্য বিখ্যাত। এখানে শত শত মণ শাক-সবজি ও অন্যান্য কাঁচামাল কেনাবেচা হয়। এসব কেনাকাটা চলে রাস্তার ওপর। সড়কটিকে আবর্জনা মুক্ত এবং পথচারীদের চলাচল স্বাভাবিক রাখতে রাসিক কিছু দিন আগে সেখানে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চালায়। কিন্তু মাস পার হতে না হতেই সমস্ত সড়কে বাজার বসেছে। কেনা-কাটা চলছে। এর ফলে এ সড়ক দিয়ে পথচারীদের চলাচল কঠিন হয়ে পড়েছে।
নগরীর সাহেব বাজারের সাথে চলাচলের প্রধান সড়ক হচ্ছে বিন্দুর মোড় হতে নিউমার্কেট হয়ে গণকপাড়া সড়ক। এ পথ দিয়ে পথচারীদের চলাচলের সমস্যা হচ্ছে ফুটপাত ও সড়ক দখল করে ব্যবসা-বাণিজ্য চালানো। কিছুদিন আগেই রাসিক কর্তৃপক্ষ নিউমার্কেটের সম্মুখ থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে। সাধারণ মানুষের আশা ছিল এবার হয়তো ফুটপাত দখলমুক্ত হয়ে পথচারীদের চলাচল সহজ হবে। কিন্তু তা আর হলো না। তারা এখন আগ বেড়ে ফুটপাতসহ সড়ক পর্যন্তও দখল করে নিয়েছে। সেখানে বিকাল হবার সাথে সাথে সড়কে বসে ভাজা-পোড়া, জুতা স্যান্ডেল ও তৈরি পোশাকের বাজার। এ পথ দিয়ে পথচারীদের চলাচল কঠিন হয়ে পড়েছে।
নগরীর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক হচ্ছে হড়গ্রাম অক্ট্রয় মোড় হতে কোর্ট স্টেশন মোড় পর্যন্ত। সেখানে সড়ক আর ফুটপাত ব্যবসায়ীদের দখলে চলে যাওয়ায় খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এ সড়কের ওপরই বাজার বসে। সেখানে অসংখ্য ক্রেতাদের ভিড় হয়। ক্রেতাদের চাপে সড়ক দিয়ে সাধারণ মানুষের হাঁটাই দায়। এরই মধ্যে কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটির প্রশস্তকরণ হয়েছে। এখনতো সড়কটি দিয়ে সাধারণ মানুষের চলাচল স্বাভাবিক হবার কথা। অথচ তা হয়নি। ব্যবসায়ীরা সড়ক ও ফুটপাত দখল করে বাজার গড়ে তোলায় মানুষের চলাচল কঠিন হয়ে উঠেছে। এর পরও দূরবস্থা থেকে মুক্তি পায়নি পথচারী আর এলাকার মানুষ। এখনও এ সড়ক আর ফুটপাতের ওপরই বাজার বসছে নিয়মিত। বাজার যখন বসে তখন এ প্রশস্ত সড়কেও পথচারীদের চলার উপায় থাকে না। অপর দিকে দিগন্ত প্রসারী সংঘের মোড় হতে কোর্ট ঢালুর মোড় পর্যন্ত সম্পূর্ণটাই হোটেল আর মুরগি ব্যবসয়ীসহ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দখলে। এছাড়াও রেলগেট, ল²ীপুর, বিনোদপুর, তেরখাদিয়া বাজারেও মার্কেটের ভিতরের দোকান বাদ দিয়েই ফুটপাতের ওপর চলছে বিভিন্ন ধরনের পণ্যের কেনাকাটা।
অপর দিকে নগরীর অধিকাংশ ছোট ছোট যানবাহনে সড়কের ওপর যাত্রীদের উঠা-নামা চলছে অহরহ। কেউ হোন্ডা, কেউ ব্যক্তিগত ট্যাক্সি আবার অনেক চালক অটো রাস্তার ওপর রেখে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সড়কের মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকে যাত্রীর অপেক্ষায়। আবার অনেক ব্যবসায়ী নিজের মোটরসাইকেল রাস্তায় রেখে দোকানে ব্যবসা করছেন।
ইতোমধ্যে নগরীর অনেক সড়ক প্রশস্তকরণ হয়েছে নগরকে যানজট ও জনজটমুক্ত রাখার জন্য। জনসচেতনতার অভাবে কোনভাবেই যানজট ও জনজটমুক্ত রাখা যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।
এ সম্পর্কে রাসিকের প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক বলেন, নিউমার্কেট এর পাশের সড়কের অবৈধ স্থাপনা ধীরে ধীরে মুক্ত হবে। হড়গ্রাম হতে কোর্ট স্টেশন সড়কের ওপর আগে থেকেই কাঁচা বাজার চালু ছিল। তাই এর বিকল্প বাজার গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। আর মাস্টার পাড়া সড়কের ওপর যে কাঁচা বাজার বসছে তা একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে চলার কথা। এর ব্যত্যয় হলে ব্যবস্থা হবে বলে জানান।
এ ব্যাপারে আরএমপি’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, নগরীকে যানজট মুক্ত করতে আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সেই সাথে ফুটপাত ও রাস্তা দখলমুক্ত করতেও আমাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

শর্টলিংকঃ