চীনা টিকার সফলতা দাবি

অনলাইন ডেস্ক: চীনের একটি কোভিড-১৯ টিকা মাঝ পর্যায়ের ট্রায়ালে সফলতা দেখিয়েছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। গত বছরের ডিসেম্বরে বিশ্বের যে দেশটিতে প্রথম প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের উপস্থিতি মিলেছিল, সেই চীন কোভিড-১৯ এর বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য টিকা নিয়ে কাজ করছে; এর মধ্যে কয়েকটির প্রয়োগও শুরু হয়েছে। বিবিসি।

গবেষকদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সাতশোরও বেশি লোকের ওপর চালানো ট্রায়ালে দেখা গেছে চীনের সিনোভ্যাক বায়োটেকের টিকা প্রয়োগের পর তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দ্রুত চাঙ্গা করে তোলে।

তুলনামূলক বড় আকারের ট্রায়ালে ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের ভ্যাকসিনগুলোর ব্যাপক সাফল্যের খবর প্রকাশিত হওয়ার পর সিনোভ্যাকের টিকার মাঝ পর্যায়ের ট্রায়ালের ফলাফল জানা গেল।

বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত তথ্য-উপাত্তে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি ও রাশিয়ার তিনটি টিকা করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ৯০ শতাংশেরও বেশি কার্যকর বলে দেখা যাচ্ছে। এসব টিকার ট্রায়ালে লাখো মানুষ অংশ নিয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো চীনও একটি কার্যকর কোভিড-১৯ টিকা উৎপাদনে প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নেমেছে।

প্রথম পর্যায়ের ট্রায়ালে ১৪৪ জন ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে ৬০০ জনের উপর প্রয়োগের পর পাওয়া ফলাফলে টিকাটি যে ‘জরুরি ব্যবহারে উপযুক্ত’ তা বোঝা গেছে বলে মন্তব্য করেছেন ল্যানসেটে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনের অন্যতম লেখক জু ফেংচাই। সিনোভ্যাকের এ টিকাটির তৃতীয় পর্যায়ের বড় আকারের ট্রায়াল চললেও এর ফলাফল সংক্রান্ত কোনো তথ্য এখনও প্রকাশিত হয়নি।

সিনোভ্যাকের টিকা নেওয়া এক স্বেচ্ছাসেবকের মৃত্যুর খবর আসার পর গত সপ্তাহে ব্রাজিলে টিকাটির ট্রায়াল বন্ধ রাখা হয়েছিল। কিন্তু স্বেচ্ছাসেবকের মৃত্যুর সঙ্গে টিকাটির কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই, এটি নিশ্চিত হওয়ার পর অল্প সময়ের মধ্যে ফের ট্রায়াল শুরু হয়।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ