চারঘাট ও বড়াইগ্রামে ২ নারীর লাশ উদ্ধার

সোনালী ডেস্ক: রাজশাহীর চারঘাট ও নাটোরের বড়াইগ্রামে ২ নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
চারঘাট প্রতিনিধি জানান, চারঘাটে মহিলার লাশ উদ্ধার করেছে মডেল থানা পুলিশ। নিহত মহিলার নাম আকলিমা বেগম (৫০)। তার স্বামী মৃত আবুল কাশেম মোল্লার বাড়ি উপজেলার মাড়িয়া গ্রামে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, আকলিমা বেগমের ২টি মেয়ে ও ১টি ছেলে। মেয়ে ২টির বিয়ে হয়ে যায় এবং ছেলে জার্মান (২৮) তার শ্বশুরবাড়ি পুঠিয়া উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামে বসবাস করেন। যার কারণে আকলিমা বাড়িতে একা বসবাস করে। গতকাল শুক্রবার সকালের দিকে মাড়িয়া গ্রামের দুই আম বাগানের নালার মধ্যে তার লাশ পড়ে থাকা দেখে এলাকাবাসী চারঘাট থানায় খবর দিলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে নিহত আকলিমার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ব্যাপারে নিহত আকলিমার ছেলে জার্মান আলী জানান, লোকমুখে খবর পেয়ে দ্রæত ঘটনাস্থলে চলে আসি। তবে হত্যার পেছনে কোন কারণ আমার জানা নাই।
এ ব্যাপারে চারঘাট সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নুরে আলম বলেন, তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে । ময়না তদন্তের পরে বিস্তারিত জানা যাবে। চারঘাট মডেল থানার ওসি সমিত কুমার কুÐু বলেন, নিহত মহিলাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।
বার্তা সংস্থা এফএনএস জানায়, নাটোরের বড়াইগ্রামে তালাবদ্ধ একটি ঘর থেকে এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত আঁখি খাতুন (১৫) বড়াইগ্রামের মাঝগাঁও ইউনিয়নের দক্ষিণ মালিপাড়া গ্রামের আবদুল খালেক মিয়াজীর মেয়ে। গত বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে লাশটি ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালে পাঠায়। প্রতিবেশিদের বরাতে বড়াইগ্রাম থানার বনপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক তৌহিদুর রহমান বলেন, আঁখিকে তার বাবা-মা গত ছয় মাস ধরে একটি ঘরে আটকে রেখে বাইরে থেকে তালা দিয়ে রেখেছিলেন। ওই ঘরে কোনো লাইট বা ফ্যান ছিলো না। মেয়েটিকে খাবার দেয়া হত দরজার নিচ দিয়ে। বুধবার সন্ধ্যায় ওই ঘর থেকে আঁখির লাশ উদ্ধারের পর স্বজনরা তড়িঘড়ি করে দাফনের চেষ্টা করলে প্রতিবেশিরা বাধা দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় বলে জানান তিনি। আঁখির মা নাসিমা বেগম সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আঁখি অসুস্থ ছিল, তাই মারা গেছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য মফিজুল ইসলাম বলেন, যতদূর জানি ও দেখেছি মেয়েটি সুস্থ ছিল।

শর্টলিংকঃ