কুটনামি নেই, তাই বন্ধ হচ্ছে কলকাতার বাংলা সিরিয়াল

অনলাইন ডেস্ক: সিরিয়াালে কুটনামে নেই, তাই নেই দর্শকও। এতে করে টিআরপি পড়ে যেতে শুরু করেছে কলকাতার একটি সিরিয়ালের। আর তাইতো বন্ধ হতে চলেছে কাদম্বিনী নামের ওই সিরিয়ালটি। জি বাংলায় এই সিরিয়ালটি এতদিন দেখানো হতো। ৫ অক্টোবর সিরিয়ালটির শেষ এপিসোড দেখানো হবে।

৬ অক্টোবর থেকে কাদম্বিনীর জীবন নিয়ে একটিই মাত্র সিরিয়াল দেখতে পাবেন বাঙালি দর্শক। সেটি স্টার জলসার ‘প্রথমা কাদম্বিনী’, যা ১০০ পার হল।রেটিংয়েও দুই ধারাবাহিকের অবস্থান লক্ষ্য করার মতোই। প্রথমটি রেটিংয়ে এই সপ্তাহেও চারের ঘরে। দ্বিতীয়টি দীর্ঘ দিন ৪-এর ঘরে থাকার পর চলতি সপ্তাহে ৫.৩।

কেন চলতি বছরেরে ৬ জুলাই শুরু-হওয়া ‘কাদম্বিনী’ টিআরপি পেল না, তা নিয়ে টলি সিরিয়ালের সঙ্গে জড়িত বিভিন্নজনের বিভিন্ন মতামত রয়েছে। তবে সিংহভাগের বক্তব্য, চালু সিরিয়ালের মডেলে গল্প না আগানোয় দর্শকরা উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছেন। অর্থাৎ, সফল সিরিয়ালে একজন নায়ক, তার স্ত্রী এবং প্রেমিকাকে নিয়ে ত্রিকোণ প্রেম কিম্বা সাংসারিক কূটকচালি অথবা যৌথ পরিবারের অতি নাটকীয়তা থাকে। ‘কাদম্বিনী’ সিরিয়ালে সেসব কিছু পাননি দর্শক। এমন কথাও শোনা গিয়েছে, যাদের বাড়িতে টিএরপি মাপার যন্ত্র বসানো রয়েছে, তারাও ‘কাদম্বিনী’-র চেয়ে ‘কৃষ্ণকলি’, ‘মোহর’, ‘শ্রীময়ী’ ইত্যাদি সিরিয়াল নিয়ে অনেক বেশি আগ্রহী। অন্তত টিআরপি-র হিসাব তেমনই বলছে।

কাকতালীয় হলেও প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বছরদশেক আগে একটি সিরিয়াল শুরু হয়েছিল গ্রাম থেকে আসা এক সাধারণ মেয়ের বিভিন্ন বাধা পেরিয়ে লড়াই করে চিকিৎসক হয়ে ওঠার গল্প নিয়ে। কিন্তু দর্শক না পাওয়ায় ১০টি এপিসোডের পরেই বন্ধ করে দিতে হয় সেই ধারাবাহিকটি।

প্রসঙ্গত, জি বাংলার নিজস্ব প্রযোজনা ‘রাণী রাসমণি’-র ও মান পড়তির দিকে। কিন্তু সেটি এখনও বন্ধ করা হয়নি। ওয়াকিবহালদের অনেকেরই দাবি, নিজস্ব প্রযোজনা আর বাইরের প্রযোজকের তৈরি সিরিয়ালের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। ‘রাসমণি’ এক বছরে গতানুগতিক ছন্দে চলে এসেছে। তাকে নিয়ে নতুন করে আর ভাবার কিছু নেই।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ