কারাগারে মৃত্যুদÐের রায় শুনলেন জামায়াত নেতা আজহারুল

সোনালী ডেস্ক: একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত হত্যা, গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদÐপ্রাপ্ত আসামি জামায়াতে ইসলামীর নেতা এটিএম আজহারুল ইসলামকে মৃত্যুদÐের রায় পড়ে শোনানো হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে তাকে রায় পড়ে শোনায় কারা কর্তৃপক্ষ। কারাগার সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্র জানায়, গত সোমবার গভীর রাতে জামায়াতে ইসলামীর নেতা এটিএম আজহারুল ইসলামের মৃত্যুদÐের আদেশের কপি কারাগারে আসে। পরে গতকাল মঙ্গলবার সকালে কারাগারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে রায় পড়ে শোনান। এ সময় দÐপ্রাপ্ত আজহারুল ইসলাম এ রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ পিটিশন করবেন বলে কারা কর্তৃপক্ষকে জানান। দÐপ্রাপ্ত আজহারুল আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে রিভিউ পিটিশন জমা দিতে পারবেন।
এর আগে গত সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে পরোয়ানা জারির আদেশপ্রাপ্তির পর মৃত্যু পরোয়ানা কারা কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসন (ডিসি), আইন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। লাল কাপড়ে মোড়ানো মৃত্যুদÐের পরোয়ানা এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আদেশ ছিল তাতে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার সাঈদ আহমদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
এর আগে গত রোববার বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার কার্যালয় থেকে আপিল বিভাগের রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পৌঁছায়। রায়ে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতিদের স্বাক্ষরের পর গত রোববার বিকেলে এ টি এম আজহারুল ইসলামের মৃত্যুদÐ বহাল রেখে আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায়ের অনুলিপি প্রকাশ করা হয়।
রায় প্রকাশের বিষয়টি নিশ্চিত করে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল কর্মকর্তা ব্যারিস্টার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান বলেন, রায়ের কপি ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। রায় প্রকাশের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, রায় প্রকাশ হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ আবেদন করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আবেদন করা না হলে ফাঁসি কার্যকরের আইনগত প্রক্রিয়া শুরু হবে। আর রিভিউ আবেদন করলে শুনানি শেষ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। রিভিউ নিষ্পত্তি হওয়ার পর রায় দÐ কার্যকর করা হবে।
এ টি এম আজহারুল ইসলাম হলেন সপ্তম ব্যক্তি যিনি মানবতাবিরোধী অপরাধে চ‚ড়ান্তভাবে আপিল বিভাগ থেকে মৃত্যুদÐের রায় পেয়েছেন। এর আগে জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামান ও আবদুল কাদের মোল্লা এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদÐ কার্যকর করা হয়। অপর এক আসামি মাওলানা দেলাওয়ার সাঈদীর মৃত্যুদÐ থেকে কমে আমৃত্যু কারাদÐ ঘোষণা করে রায় দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

শর্টলিংকঃ