কাটছেই না চীফ জুডিসিয়াল ভবনের লিফট সমস্যা

বিশেষ প্রতিনিধি: রাজশাহীর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের লিফট সমস্যা দীর্ঘদিনের। এই ভবনের দুটি লিফটের মধ্যে একটি অচল অবস্থায় আছে প্রায় এক মাসের অধিক সময়। লিফট সমস্যার কারণে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে আইনজীবীসহ হাজারো বিচারপ্রার্থীর। বিশেষ করে নারী, বয়স্ক এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য দুর্ভোগ চরম হয়ে উঠেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, ২০১৭ সালের ১৯ জুলাই আটতলা এই ভবনের উদ্বোধন করা হয়। রাজশাহীতে এজলাস সঙ্কট দূর করতে জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের পাশে প্রায় ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ১ লাখ বর্গফুট বিশিষ্ট চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনটি নির্মিত। এই ভবনে বিভিন্ন সুবিধাসহ আছে ১০টি এজলাস।

ভবন উদ্বোধনের বেশ কিছুদিন পর ভবনটিতে ওঠা-নামার জন্য দুটি লিফট স্থাপন করা হয়। একটি আইনজীবীদের ব্যবহারের আর অপরটি বিচারপ্রার্থীসহ অন্যদের জন্য। কিন্তু শুরু থেকেই লিফট দুটিতে নানান সমস্যা দেখা দেয়। কখনও একটি সচল তো অন্যটি অচল, এ নিয়েই চলছে লিফট দুটির কার্যক্রম।

অচল হলে তা মেরামতেরও উদ্যোগ নেয়া হয় না খুব সহজে। এমন অভিযোগ আইনজীবীসহ সংশ্লিষ্টদের। আইনজীবীরা বলছেন, একটি লিফট অকেজো থাকায় অপরটিই এখন ভরসা। আর এই লিফট ব্যবহার নিয়ে আইনজীবীদের সাথে বিচারপ্রার্থীসহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে মাঝে মধ্যেই তর্কবির্তক সৃষ্টি হচ্ছে।

আইনজীবী নূর-এ-কামরুজ্জামান ইরান বলেন, আটতলা এই ভবনে ওঠানামা নিয়ে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। এতে করে একটি লিফটে বেড়েছে চাপ। যাতে করে মানুষকে ওঠানামায় দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। লিফট ছাড়া ৮ তলা এই ভবনে ওঠানামা করা বয়স্ক এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য অসাধ্য হয়ে পড়েছে। আইনজীবী আব্দুল্লাহিল কাফি জানান, লিফট বিকলের পাশাপাশি আছে বিদ্যুতের বিড়ম্বনা। অনেক সময়ই বিদ্যুৎ থাকে না। তখন আটতলায় ওঠার কথা চিন্তাই করা যায় না।

এদিকে সূত্র বলছে, শুরু থেকেই লিফট দুটিতে মাঝে মাঝেই দেখা দেয় নানান সমস্যা। হঠাৎ হঠাৎ তা মাঝ পথেই থেমে যায়। কখনও খুলতে চায় না লিফটের দরজা। আর এ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ। কারও কারও মন্তব্য এই উঁচু বিল্ডিং তৈরির আগে ভেবে দেখা দরকার ছিল লিফট ছাড়া এখানে চলাচল করা কতটা কষ্টকর। এদিকে দীর্ঘ সময় লিফট অকেজো থাকলেও তা মেরামতের কোন উদ্যোগ নেই বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের।

এ বিষয়ে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পারভেজ তৌফিক জাহেদী জানান, শুরু থেকেই লিফট দুটিতে সমস্যা ছিল এবং মাঝে মাঝেই তা বন্ধ হয়ে যায়। আটতলা এই উঁচু ভবনে লিফট ছাড়া ওঠা-নামা সম্ভব নয়। তিনি আরও বলেন, লিফটের এই সমস্যা সমাধানের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়কে লিখিত এবং মৌখিকভাবেও জানানো হয়েছে।

আইনজীবী আব্দুল্লাহ কাফি বাক্কার লিফট দুটির মান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তার মতে, শুরু থেকেই এতে সমস্যা দেখা গেলেও কেউ এই বিষয়টির প্রতি নজর দেয়নি। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখার দাবি জানান। আইনজীবীদের মতে, চারতলা পর্যন্ত সিঁড়ি ভেঙে ওঠা গেলেও আটতলায় ওঠা অনেকের জন্য দুঃসাধ্য ব্যাপার। আইনজীবীসহ সংশ্লিষ্টরা অবিলম্বে লিফট দুটি সচল দেখতে চান। ঘন ঘন অচল হওয়ার বিষয়টিও খতিয়ে দেখার দাবি ভুক্তভোগীদের।

লিফট নিয়ে আইনজীবীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভবনটি উদ্বোধনের পর থেকে লিফট অচল এবং ছোটখাটো দুর্ঘটনা হরহামেশাই ঘটছে। এর আগেও আইনজীবীরা লিফটে আটকা পড়েছেন, আহতও হয়েছেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না। মূলত নিম্নমানের লিফট দেয়ার কারণে একই ঘটনা ঘটছে ঘুরে ফিরে এমনটিই ধারণা সকলের।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ