করোনা সংক্রমণ রোধে কঠোর ব্যবস্থার বিকল্প নেই

করোনার বিস্তার ঠেকাতে সতর্ক হওয়ার কথায় আশানুরূপ সাড়া না পাওয়ায় সরকার কঠোর পদক্ষেপ নিতে চলেছে। মাস্ক ছাড়া ঘরের বাইরে বের হলে শুধু জরিমানা নয়, ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কারাদণ্ড দেয়ার কথা জািনয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার ভার্চুয়াল বৈঠকে মাস্কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শীতের সাথে যেন পাল্লা দিয়েই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। বাড়ছে মৃত্যুও। এ অবস্থায় করোনা প্রতিরোধে সতকর্তা অবলম্বনের কথা বলা হচ্ছিল নানাভাবে। পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত জরিমানা করেও পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছিল না। অনেকের মধ্যেই একটা বেপরোয়া মনোভাব প্রকাশ পাওয়ায় সরকারের কঠোর ব্যবস্থার বিকল্প ছিল না।

এ অবস্থায় রাজধানী ঢাকায় যারা রাস্তায় মাস্ক না পরেই বের হচ্ছে তাদের জরিমানা করার মাধ্যমে সর্তক করা হচ্ছে। প্রয়োজনে সর্বোচ্চ (৫শ টাকা) পরিমাণ জরিমানা করে সাত থেকে ১০ দিন দেখা হবে। এতেও ফল পাওয়া না গেলে কঠোর শাস্তি (কারাদণ্ড) দেয়ার কথাও বলা হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে। তবে রাজশাহীতে এ ধরনের কঠোর পদক্ষেপ দেখা যায়নি। প্রশাসনের কিছু সতর্কতামূলক পদক্ষেপে মাস্ক ব্যবহার কিছুটা বাড়লেও এখনও অনেককেই বিনা মাস্কে দেখা যায়।

এ অবস্থায় করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা ও ভ্যাকসিন সংগ্রহে সরকারের পরিকল্পনার পাশাপাশি মাস্কসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করা ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে মানুষ। কারণ এখন পর্যন্ত করোনার সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা না থাকায় সংক্রমণ মোকাবিলায় টিকার (ভ্যাকসিন) দিকেই তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে।

বিশ্বের অনেক নামী-দামী ওষুধ কোম্পানি ও বিজ্ঞানীদের এই টিকা আবিষ্কারের চেষ্টায় বেশ অগ্রগতি হয়েছে। কয়েকটি কোম্পানি তাদের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করে কার্যকর ও নিরাপদ দাবিও করেছে। কিন্তু কোনো টিকাই আনুষ্ঠানিক অনুমোদন পায়নি।

এ বিষয়ে সরকারের খসড়া জাতীয় পরিকল্পনায় ব্যবহার উপযোগী এবং অনুমোদিত টিকা পাওয়া মাত্র স্বল্প সময়ের মধ্যে কাজে লাগানোর প্রস্তুতির কথা বলা হয়েছে। টিকা কেনা, সংরক্ষণ, সরবরাহ ও টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েও কাজ শুরু হয়েছে। সরকার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিলেও বিষয়টি যে অনিশ্চিত তা বলাই বাহুল্য।

তাই বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সচেষ্ট থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারের কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের বিকল্প নেই। মাস্ক পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে এ ছাড়া অন্য পথ নেই বলেই সবার ধারণা।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ