করোনা প্রতিরোধে আতঙ্ক নয়, সাবধানতা জরুরি

বাংলাদেশ করোনাভাইরাস সংক্রামণের তৃতীয় ধাপে অর্থাৎ সামাজিক সংক্রামণের ঝুঁকির মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫০ এর কাছাকাছি। মৃতের সংখ্যা পাঁচ। এর মধ্যেই ১০ দিনের সাধারণ ছুটি, গণপরিবহণ বন্ধ ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে অচল হয়ে পড়েছে দেশ। রাজধানীসহ শহর ছেড়ে গ্রামে আসা মানুুষদেরও ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে, যাতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে না পড়ে। কারণ ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ জানতে সময় লাগে সর্বাধিক ১৪ দিন। সাবধান না থাকলে এ সময়ের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়বে আশ পাশে। তাই করোনা প্রতিরোধে আতঙ্ক নয়, প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বন জরুরি।
বিষয়টা এখন অজানা না থাকলেও দিন আনা, খেটে খাওয়া মানুষের পক্ষে ঘরে থাকা কতদিন সম্ভব হবে সে প্রশ্ন বড় হয়ে উঠেছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী খাদ্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। এর দ্রæত বাস্তবায়নের অপেক্ষায় এখন ঘর বন্দী গরিব মানুষ। এমনিতেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় প্রস্তুতির ঘাটতি সংশ্লিষ্টদের বিভ্রান্তিতে ফেলেছে। সুরক্ষা ব্যবস্থার অভাবে চিকিৎসকরা রোগী দেখা কমিয়ে দিয়েছেন। হাসপাতালগুলো থেকে হতাশ হয়ে ফিরে আসতে হচ্ছে সাধারণ রোগীদেরও। এর মধ্যে একাধিক চিকিৎসক-সেবিকা করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। তাই পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা নিশ্চিত না হলে চিকিৎসা সেবা স্বাভাবিক হবে, আশা করা কঠিন।
তবে দেরিতে হলেও চীন থেকে করোনা প্রতিরোধ ও পরীক্ষার সরঞ্জামাদি আসতে শুরু করেছে। দ্রæত সেগুলো দেশের হাসপাতালগুলোতে পৌঁছে গেলে পরিস্থিতির উন্নতি আশা করা যায়। এর পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ঘরে থাকা নিশ্চিত হওয়াও দরকার। ঘনবসতির এই দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা অমূলক নয়। তার ওপর আমাদের সামাজিক সুরক্ষাব্যবস্থাও খুব একটা শক্তিশালী নয়। ঘরবন্দী মানুষের বেঁচে থাকার উপকরণাদির মতই স্বাস্থ্যসেবা ও পরীক্ষার সক্ষমতার অভাবও দৃশ্যমান। এই অভাব দূর করার পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধে সাবধানে থাকাই এখন সবার দায়িত্ব।
প্রত্যেকের সুস্থ থাকা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার ওপরেই ভাইরাস সংক্রমণ থেকে দূরে থাকা নির্ভর করছে। কষ্টকর হলেও এসব মেনে চলার বিকল্প নেই। এই বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলার আর কোনো পথ খোলা নেই আমাদের সামনে।
আতঙ্কিত না হয়ে, গুজবে কান না দিয়ে, আসুন প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বন করি, করোনা ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধ করি।

শর্টলিংকঃ